বাগাতিপাড়ার বৃদ্ধা আনূরা বেগমের কপালে জোটেনি সরকারি ভাতা

বাগাতিপাড়ার বৃদ্ধা আনূরা বেগমের কপালে জোটেনি সরকারি ভাতা

মোঃ ফজলে রাব্বী,বাগাতিপাড়া (নাটোর): বাবার মৃত্যুর পর ৩৫ বছর ধরে একাকিত্ব কুরে কুরে খাচ্ছে নাটোরের বাগাতিপাড়ার আনূরা বেগমকে। রক্তের সম্পর্কের কেউ বেঁচে নেই। কর্মক্ষমতাহীন বৃদ্ধ এই নারীর দিন চলে অর্ধাহারে অনাহারে। সম্মানহাণীর ভয়ে ভিক্ষাও করেননা। বিয়ের এক মাসের মাথায় জীবনের প্রথম সংসার ভেঙ্গে যাওয়ায় অভিমানে দ্বিতীয় বিয়েও করেননি। এখন জীবন যুদ্ধে আর পেরে উঠছেন না। উপার্জন নেই, নেই খাবার কেনার অর্থ, রাতে প্রদীপ জ্বালানোর তেল কেনারও টাকা নেই। তাই ৩৫ ধরে অন্ধকারেই বসবাস আনূরা বেগমের। জীবন সায়াহ্নে দাঁড়িয়ে অসহায় এই বৃদ্ধার কপালে জোটেনি কোন সরকারি ভাতা। তিনি উপজেলার জামনগর ইউনিয়নের দেবনগর গ্রামের মৃত ময়েন উদ্দিনের মেয়ে।

আনূরা বেগম জানান,তার দুঃখ ভরা জীবনের গল্প। চৌদ্দ বছর বয়সে পাশের গ্রাম রহিমানপুর টিকর পাড়ায় তার বিয়ে দিয়েছিলেন বাবা-মা। বিয়ের এক মাসের মাথায় স্বামীর পরিবারের অমানবিক নির্যাতন সহ্য করতে না পারায় সংসার ভাঙ্গে আনূরা বেগমের। এরপর মনের ক্ষোভ আর অভিমানে ৪৬ বছর পেরোলেও আর কখনও বিয়ে করেননি। এখন তার বয়স ৬০ বছর। একে একে পৃথিবী ছেড়ে রক্তের সম্পর্কের সবাই বিদায় নিয়েছেন। গর্ভধারিণী মায়ের বিদায়ের পর বাবাও মারা যান ৩৫ বছর পূর্বে। এরপর থেকে একাকী জীবন সংগ্রামে  কর্মক্ষমতাহীন নারী আনূরা বেগম। পৈতৃক সূত্রে পাওয়া বাড়ির দুই শতাংশ জমি ছাড়া আর কিছুই নেই তার। আজ পর্যন্ত স্বামী পরিত্যক্তা-বিধবা ভাতা জোটেনি তার কপালে।

 তিনি আরও জানান, প্রতিবেশীদের উচ্ছিষ্ট খাবার খেয়েই জীবনের বেশিরভাগ খাবারের চাহিদা পুরণ করেন। তাছাড়া অন্যের জমিতে ফসল কাটার পর পড়ে থাকা এবং ইদুরের গর্ত থেকে ধান বা গমের শীষ কুড়িয়ে জমা করে তাই দিয়ে বাকিটুকুও চালিয়ে নেন। মানুষের জমিতে মুগ কালাই ও মটরের ফল উঠিয়ে যে সামান্য টাকা পাওয়া যায় তা দিয়ে সারা বছর তেল, লবন কেনেন। সামান্য টাকায় এসবের পর কেরোসিন কেনার টাকা থাকে না। তাই অন্ধকারের মধ্যেই রাত কাটিয়ে দেন। জীবন সায়াহ্নে এখন শরীরে বেঁধেছে নানা ধরনের ব্যাধি। বছর চারেক পূর্বে স্থানীয় বিপ্লব নামের এক শিক্ষকের দেওয়া এক বান টিন ও তিন হাজার টাকায় কোন রকমের একটি ঘর করেছেন। এব্যাপারে জামনগর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বলেন, আনূরা বেগম কখনও তাকে এ বিষয়ে আবেদন জানাননি। এবারের বরাদ্দেই তাকে সরকারি ভাতার আওতায় আনা হবে বলে তিনি জানান।