ববিতা’র ফেরার প্রতীক্ষায়...

ববিতা’র ফেরার প্রতীক্ষায়...

বিনোদন রিপোর্টার : অনেকদিন নতুন কোন চলচ্চিত্রে দেখা যাচ্ছেনা আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নায়িকা ববিতা’কে। কিন্তু তারপরও ব্যস্ততার মধ্যদিয়েই কেটে যাচ্ছে তার। এক মাস আগে ববিতা’র ছোট ভাই পাইলট ইকবাল ইসলাম স্বপন আমেরিকা থেকে দেশেএসেছেন বেড়াতে। ভাইকে নিয়েই সময় কাটছে তার। এরইমধ্যে ভাইকে সঙ্গে নিয়ে ভারত থেকে ঘুরে এসেছেন। গিয়েছিলেন কক্সবাজার, বান্দরবান। বান্দরবানের সাইরু’তে গিয়ে মুগ্ধ হয়েছেন ববিতা। ববিতা বলেন,‘ আমাদের দেশের মধ্যে এতো সুন্দর জায়গা আছে তা সাইরুতে না গেলেও জানাই হতো না আমার। ভীষণ ভালোলেগেছে আমার সেখানে গিয়ে। আল্লাহর কী অপরূপ সৃষ্টি তা নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাসের নয়।’ এখন চলচ্চিত্রে অভিনয় থেকে দূরে আছেন বলেই নিজের মতো করে ঘুরতে পারছেন তিনি, এমনটাই জানালেন ববিতা। তবে সঙ্গে তার একমাত্র ছেলে অনিক থাকলে সময়য়টা আরো উপভোগ্য হয়ে উঠতো বলেও কিছুটা আফসোস করেন কিংবদন্তী এই নায়িকা। দর্শকের ভালোবাসার মাঝে ববিতা সবসময়ই ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন।

 আগামীতে ববিতা যদি আর নতুন কোন চলচ্চিত্রে অভিনয়ও না করেন তবুও বাংলাদেশের দর্শক তাকে আজীবন মনে রাখবেন। কারণ এই দেশের চলচ্চিত্রে তার যে অবদান রয়েছে তাই তাকে যুগের পর যুগ বাঁচিয়ে রাখবে। বেশ কয়েকবছর হলো ববিতা চলচ্চিত্রে অভিনয় থেকে দূরে আছেন। সর্বশেষ নারগিস আক্তার পরিচালিত ‘পুত্র এখন পয়সাওয়ালা’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন। এরপর বলা যায় আরো অনেক চলচ্চিত্রে কাজ করার প্রস্তাব পেয়েছেন তিনি। কিন্তু গল্প এবং চরিত্র পছন্দ না হওয়ায় অভিনয়ে আর ফেরা হয়নি তার। তবে অভিনয় করবেন না এমনটিও নয়। ববিতা বলেন,‘ সাম্প্রতিক সময়ে একজন পরিচালক সত্য ঘটনা অবলম্বনের একটি চলচ্চিত্রের গল্প আমাকে শুনিয়েছেন। আমারও মোটামুটি ভালোলেগেছে। আমি তাকে স্ক্রিপ্ট দিতে বলেছি।

 যদি খুউব ভালোলেগে যায় তাহলে হয়তো অভিনয়ে ফেরা হতে পারে। আমি বিশ্বাস করি শিল্পীর কোন অবসর নেই। এখন করছিনা, তারমানে এই নয় যে আগামীতে অভিনয় করবোনা। আমার ভালোলাগলে অবশ্যই অভিনয় করবো।’ কিছুদিন আগে ববিতার নিমন্ত্রণে ববিতার বাসায় উপস্থিত হয়েছিলেন বাপ্পারাজ, ওমরসানী মৌসুমী, আমিন খান, রিয়াজ-তিনা, ফেরদৌস, পূর্ণিমা। ববিতা তাদের সঙ্গে আড্ডায় মেতে উঠেছিলেন। ববিতাকে ঘরোয়া এই আয়োজনে সহযোগিতা করেছিলেন তারই ছোট বোন চম্পা। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রথম পরিচিত করে তুলেন ববিতা। ববিতা’র নামেও অনেকে চিনেন এই বাংলাকে। তাই ববিতা আমাদের চলচ্চিত্রের গর্ব। যিনি আমাদের চলচ্চিত্রের গর্ব, সেই গর্বিতজনকে তার ভালোলাগার মতো গল্পে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে আবারো তাকে রূপালী পর্দায় ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব চলচ্চিত্র অঙ্গনেরই। একজন ববিতা অভিনয়ে নিয়মিত থাকলে তার চারপাশ হবে আরো আলোকিত। কারণ তার ব্যক্তিত্বের আলোয় আলোকিত হবেন সবাই। রূপালী পর্দার এই আলোকিত শিল্পীকে।