বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দরের ভিত্তিপ্রস্তর এ বছরই

বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দরের ভিত্তিপ্রস্তর এ বছরই

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্মাণকাজ ২০১৯ সালেই শুরু করতে চায় সরকার। শেষ হওয়া সমীক্ষা প্রতিবেদন হাতে পেলে এবং প্রধানমন্ত্রীর চূড়ান্ত অনুমোদন পেলে তিন মাসের মধ্যেই নকশা তৈরির কাজ শেষ করতে চায় বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

২০১৯ সালেই প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পর প্রথম ধাপে পাঁচ বছর ধরে কাজ করা হবে। আর মোট ১০ বছরে ৬ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। ১শ’ বছরের বাংলাদেশ, দেশের অর্থনীতি, জনসংখ্যা ও বৈশ্বিক অবস্থানের কথা মাথায় রেখেই এ বিমানবন্দরের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। সারাদেশের সড়ক, নৌ, রেল নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হবে এই বিমানবন্দর।
 
এরইমধ্যে জার্মানির এভি এলাইন্স পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপের ভিত্তিতে তৈরি হতে যাওয়া এই প্রকল্পে বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছে। তারা বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে যৌথভাবে এই বিমানবন্দরের অর্থায়ন, নকশা তৈরি, উন্নয়ন ও পরিচালনায় যুক্ত হতে চায়। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিপ্পন কোই’কে নতুন করে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের নির্দেশ দেওয়ার পর নভেম্বরেই এই আগ্রহ প্রকাশ করে এভি এলাইন্স। এর আগে ২০১৬ সালে নিপ্পনের সঙ্গে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের দ্বিতীয় দফার সমাঝোতায় পৌঁছায় সিভিল এভিয়েশন অথরিটি বাংলাদেশ। সে মতে ১৮ মাসে তাদের কাজ শেষ করার কথা।
 
বিমানবন্দর, বিমান সংস্থা, বৈমানিক ও উড়োজাহাজ নির্মাণ, মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ বিষয়ক বৈশ্বিক সংস্থা ‘সিএপিএ-সেন্টার ফর এভিয়েশন’ এর ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্যমতে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের থাকা তিনটি রানওয়ের প্রতিটিরই আয়তন হবে চার হাজার ৪২০ মিটার বা ১২ হাজার ফুট।
 
সংস্থাটি বলছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলে তৈরি হতে যাওয়া বিশ্বের উল্লেখযোগ্য একটি মেগা প্রকল্প। ২০০৯ সালে ক্ষমতায় এসেই মহাজোট সরকার ভবিষ্যত বাংলাদেশের কথা চিন্তা করে এই  বড় আকারের বিমানবন্দর গড়ার উদ্যোগ নিয়েছিলো। তখন সরকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে দেশের সর্ববৃহৎ বিমানকেন্দ্র হিসেবে উপস্থাপন করেছিল।
 
সরকার তখন থেকে তিনটি রানওয়ে সুবিধা নির্বাচন করার আগে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রস্তাব বিবেচনা করেছিল। জাপানি প্রতিষ্ঠান নিপ্পন কোই এই ১৫ দশমিক ৩ মিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে এর সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের দায়িত্ব পায়। ২০১২ সালের জুনে এ কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিলো। অন্যদিকে ২০১৫ সালে মূল বিমানবন্দরের কাজ শুরু হয়ে তা শেষ হওয়ার কথা ছিলো ২০২৫ সালে। আট হাজার একর জমির ওপর মূল বিমানবন্দরসহ মোট ১০ হাজার একর জমিতে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে বলে জানানো হয় সেই প্রস্তাবনায়। নিপ্পন কোই এরপরই মুন্সিগঞ্জ, ময়মনসিংহ ও মাদারীপুরে সম্ভাব্য স্থান খুঁজতে শুরু করে এবং প্রাথমিকভাবে মুন্সিগঞ্জের আড়িয়াল বিলকে এই বিমানবন্দরের জন্য ঠিক করা হয়। তবে স্থানীয়দের আন্দোলনের মুখে এই প্রকল্প স্থগিত করে নতুন স্থান খুঁজতে থাকে সরকার এবং নিপ্পন কোই।
 
বাংলাদেশ সরকারের বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী এ বিষয়ে বলেন, এই বিমানবন্দরটি হবে প্রাচ্য এবং পাশ্চাত্যের মিলনকেন্দ্র। বিশ্বের বিভিন্ন আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্টের চেয়েও এটা আধুনিক ও সুযোগ-সুবিধাসমৃদ্ধ হবে। দক্ষিণ কোরিয়ার ইনসিওন এয়ারপোর্টের আদলেই তৈরি করা হবে এ বিমানবন্দর।
 
তিনি বলেন, এরইমধ্যে নতুন এই বিমানবন্দরের স্থান প্রায় চূড়ান্ত হয়ে গেছে। এখন অপেক্ষা প্রধানমন্ত্রীর চূড়ান্ত অনুমোদন। তার অনুমোদন পেলেই সরকারের এই মেয়াদেই এর কাজ শুরু হবে। পদ্মাসেতুর ওপারে এবং সেতুর পাশেই নতুন এই বিমানবন্দর গড়ে তোলা হবে।
 
বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, নতুন এই বিমানবন্দরের মূল প্রতিবন্ধকতা হলো জমির সংস্থান। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রায় ১০ হাজার একর জমি প্রয়োজন। সেই হিসেবে পদ্মার ওপারই হলো সবচেয়ে সুবিধাজনক। সেখানে প্রায় ৩০ হাজার একর খাসজমি রয়েছে।
 
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক এই বিমানবন্দরের প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, এই বিমানবন্দরে প্রতি মিনিটে একটি করে ফ্লাইট ওঠানামা করতে পারবে। বছরে কমপক্ষে এক কোটি ২০ লাখ যাত্রীর চেক ইন ও চেক আউটের সুযোগ থাকছে। বিমানবন্দর থেকে বের হয়ে ৩০ মিনিটে কোনো যানজট ছাড়াই গুলিস্তানের জিরো পয়েন্টে পৌঁছানোর সুযোগ থাকছে। এই বিমানবন্দরে প্রতি চব্বিশ ঘণ্টায় ৪শ’ যাত্রীবাহী ফ্লাইট ও ২শ’ কার্গোবাহী ফ্লাইট অপারেশনের সুযোগ থাকছে। এই বিমানবন্দর থেকে এক ঘণ্টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর জন্য থাকবে বিশেষ মেট্রোরেল প্রকল্প।
 
২০১০ সালে মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ প্রকল্প চূড়ান্ত অনুমোদনের সময় এর ব্যয় ধরা হয়েছিলো ৫০ হাজার কোটি টাকা। এর তিনটি রানওয়েতে অত্যাধুনিক এয়ারবাস ৩৮০ ও বোয়িং ৭৭৭, ৭৭৭এক্স চলাচল করতে পারবে। এছাড়া মুখোমুখি ট্যাক্সিওয়ে ও অ্যাপ্রোন, দৈনিক ৩৫ হাজার যাত্রীবাহী টার্মিনাল, বিস্তৃত ও বিপুল সংখ্যায় করমুক্ত বিপনী বিতান, একাধিক পাঁচ তারকা ও তিন তারকাবিশিষ্ট ট্রানজিট হোটেলসহ সব আধুনিক কারিগরি ও যান্ত্রিক সুবিধাসমৃদ্ধ এভিয়েশন সম্পর্কিত স্থাপনা তৈরি করা এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে।