ফুলকপি ক্যান্সার ও হার্টের অসুখ তাড়ায়!

ফুলকপি ক্যান্সার ও হার্টের অসুখ তাড়ায়!

স্বাস্থ্য কথা ডেস্ক : শীতকালীন সবজি ফুলকপি খুবই পুষ্টিকর। রান্না কিংবা কাঁচা দু’ভাবেই খাওয়া যায়। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, বি, আয়রন, ফসফরাস, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে ক্যান্সারসহ নানান জটিল রোগ কাছেই ঘেঁষতে দেয় না ফুলকপি। আসুন জেনে নিই ফুলকপির কিছু পুষ্টিগুণ সম্পর্কে।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে : মূত্রথলি ও নারীদের প্রোস্টেট, স্তন, ডিম্বাশয় ক্যান্সার প্রতিরোধে ফুলকপির ভূমিকা অনন্য। ফুলকপিতে সালফোরাফেন নামে এমন এক উপাদান রয়েছে যা ক্যান্সার প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এই উপাদানটি ক্যান্সারের স্টেম সেল ধ্বংস করে এবং বিভিন্ন ধরনের টিউমারের বৃদ্ধি থামিয়ে দেয়। হার্টের অসুখ সারিয়ে তোলে : ভেষজ চিকিৎসকদের গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, হৃদযন্ত্র সুস্থ রাখতে ফুলকপি জাদুর মত কাজ করে। যাদের হার্টের অসুখ আছে কিংবা হার্টের জটিলতায় ভুগছেন তারা নিয়মিত ফুলকপি খেলে হার্টের অসুখ সেরে যাবে বলে জোর দিয়ে বলেছেন চিকিৎসকরা। ফুলকপির সালফোরাফেন নামের উপাদানটি উচ্চ রক্তচাপ কমায় এবং কিডনি সুস্থ রাখতেও বেশ ভালো ভূমিকা রাখে।

হজমে সহায়ক : প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও সালফার-জাতীয় উপাদান থাকার কারণে খাবার হজম প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে ফুলকপি। এছাড়া এর ফাইবার খাবার বদহজম রোধে বেশ কার্যকর। ব্রেন সুস্থ রাখে : ফুলকপিতে আছে ভিটামিন বি কমপ্লেক্স ও ভিটামিন বি, যা ব্রেন সুস্থ রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ভিটামিন বি কমপ্লেক্স মস্তিষ্কের কগনিটিভ প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে। এতে স্মৃতিশক্তি বেড়ে যায়। উচ্চ রক্তচাপ, হাই কোলেস্টেরল ও ডায়াবেটিসের রোগীরা নিঃসংকোচে ফুলকপি খেতে পারেন। কেননা ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রণ এবং কোলেস্টেরল কমাতে এই সবজিটি বন্ধুর মতো কাজ করে