ফাঁকা হচ্ছে রাজধানী

ফাঁকা হচ্ছে রাজধানী

স্টাফ রিপোর্টার : আগামী সোমবার ত্যাগ ও মহিমার কোরবানির ঈদ। ছুটিও মিলেছে সেভাবেই। ফলে ঈদযাত্রা বৃহস্পতিবার শুরু হলেও গতকাল শুক্রবার তাতে ঢল নেমেছে। রাজধানীর ট্রেন স্টেশন, বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট পানে তাই মানুষের স্রোত। তবে যাত্রাপথে যানজট ঘরমুখো মানুষকে ফেলেছে বিড়ম্বনায়। যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সবরুটেই যানজটের কারণে যথাসময়ে বাস আসছে না। তাই স্ট্যান্ডেই বসে থাকতে হচ্ছে ঘণ্টার পর ঘণ্টা। সিলেট, কক্সবাজার রুটের মহসড়কে যানজট তেমন না থাকলেও ঢাকায় ঢুকতে আকটে থাকতে হচ্ছে। প্রতিটি কোচ তিন থেকে চার ঘণ্টা দেরিতে আসছে। উত্তরবঙ্গ-দক্ষিণবঙ্গগামী যাত্রীরাও বসে থাকছেন গাবতলী স্ট্যান্ডে। মহাসড়কে তীব্র যানজটে ফিরতি গাড়ির অপেক্ষায় তারা। ময়মনসিংহগামী গাড়িগুলোর যাত্রীরাও মহাখালীতে কয়েক ঘণ্টা করে অপেক্ষমান। গাজীপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত জ্যাম তাদের যাত্রাকে করেছে দীর্ঘায়িত।

নিয়মিত পরিবহনগুলোর বাইরেও অনেকেই ছুটছেন ব্যক্তি গাড়ি, মোটরসাইকেল কিংবা মাল টানার গাড়িতে করে। তবে লঞ্চ ও ট্রেনের যাত্রীরা কিছুটা সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছেন। গাবতলীতে বাস টার্মিনালে অপেক্ষারত কুড়িগ্রামের নাবিল পরিবহনের যাত্রী সাজিদুল হক বলেন, আমার গাড়ি প্রায় ছয় ঘণ্টার মত দেরি। মহাসড়কে জ্যামের কারণে দেরিতে পৌঁছাল। মহাখালীতে জামালপুরের রাজীব পরিবহনের যাত্রী লিখন তিন ঘণ্টা অপেক্ষার পর বাস পেয়েছেন। বলেন, গাজীপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত জ্যাম অনেক। তাই গাড়ি আসছে কম। সায়েদাবাদে অপেক্ষমান যাত্রী কেরামত আলী বলেন, আমার বাস চার ঘণ্টা দেরি করেছে। স্টারলাইনে ফেনী যাবেন তিনি। তবে রেলে এতো ভিড়, অনেকে টিকিট থাকা সত্ত্বেও ভেতরে না ঢুকে ফেরত এসেছেন। সিরাজগঞ্জের যাত্রী আতিকুল ইসলাম বলেন, গাড়ি দাঁড়ানোর জায়গাও নেই। এতো ভিড় যে ভেতরে দশ ইঞ্চি জায়গাও ফাঁকা নেই। তাই ফেরত যাচ্ছি। মোটরসাইকেলে করে শেরপুরের বাড়িতে যাচ্ছেন আমিনুর রহমান।  তিনি বলেন, সকাল ১০টায় বের হয়ে, চারটার দিকে ময়মনসিংহে পৌঁছেছি। গাজীপুর পর্যন্ত প্রচন্ড জ্যাম আছে। নাড়ির টানে যখন বাড়ি ফিরছেন মানুষ তখন চিরচেনা রূপ হারাচ্ছে রাজধানী। অনেকটাই ফাঁকা হচ্ছে। আজ শনিবার নাগাদ পুরোটাই ফাঁকা হয়ে যাবে। কয়েক বছর ধরেই ছুটির দিন সত্ত্বেও শুক্রবারও রাজধানীতে বেশ জ্যাম হয়। ঈদযাত্রার কারণে আজকের শুক্রবারে সেই রূপ নেই। এদিকে টাউন সার্ভিসগুলোর বেশিভাগই যাত্রী টানছে দূরপাল্লায়। রাজধানীর সড়কে তাই লোকাল বাস কমে গেছে অর্ধেকের বেশি। ফলে ঢাকায় ট্রাফিক সিগনালে আর খুব একটা বসে থাকতে হচ্ছে না। কোথাও কোথাও যানজটের সৃষ্টি হলেও, সেটি খুব বেশি স্থায়ী হচ্ছে না। তবে লোকাল বাসের সংকটেরও সৃষ্টি হচ্ছে।