প্রার্থীতা ফেরতে আস্থা ফিরুক

প্রার্থীতা ফেরতে আস্থা ফিরুক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র বাতিল ও বৈধতার বিরুদ্ধে ৫৪৩টি আপিল আবেদন জমা পড়েছিল নির্বাচন কমিশনে (ইসি)। বাতিল হওয়া ৭৮৬ জনের মধ্যে ২৪৩জনই আপিল করেননি। গত বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত ৩ দিন আপিল আবেদনের ওপর শুনানি চলছে এবং সঙ্গে সঙ্গে রায় দেওয়া হচ্ছে। আপিলে বহু প্রার্থী তাদের প্রার্থীতা ফিরে পেয়েছেন। এর আগে দুই দিনের শুনানীতে প্রার্থীতা ফিরে পেয়েছেন বাতিল বা খারিজ হয়েছে ১৪১ জনের। দুই দিনে মোট ৩১০টি আপিল শুনানী নিষ্পত্তি করেছে ইসি। বাকিগুলো পেন্ডিং রয়েছে। গতকাল তৃতীয় দিনের মতো শুনানী চলছিল। ইসিতে আপিলে মনোনয়ন ফিরে পাওয়া প্রার্থীদের মধ্যে বিএনপি, আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, স্বতন্ত্র সহ আরো অন্যান্য দলের প্রার্থীও রয়েছেন। মূলত এ প্রক্রিয়ায় নির্বাচন কমিশনের প্রতি প্রধান বিরোধী দল বিএনপির আস্থার জায়গা তৈরি হচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবার বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। বিএনপির এই মনোভাব আগামী নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক হওয়ার পথে বড় ভূমিকা রাখতে পারে। আমরা আশা করি একটি সুষ্ঠু, অবাধ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য প্রয়োজন সবার জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বা সব প্রার্থীর জন্য সকল সুযোগ তৈরি করবে ইসি এবং সরকার। তা না হলে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে। দেশের শান্তি, স্থিতি, উন্নয়ন সমৃদ্ধি অনেকাংশেই গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক পরিবেশের সুস্থতার ওপর নির্ভরশীল। সংঘাত বা সাংঘর্ষিক রাজনীতি দেশকে শুধু পেছনেই টানে। সবার আস্থা অর্জনে নির্বাচন কমিশন যথেষ্ট-এটা কথায় নয়, নির্বাচন প্রক্রিয়ার প্রতিটি ধাপে কাজের মধ্য দিয়ে প্রমাণ করতে হবে।