পা দিয়ে লিখে জেডিসি পরিক্ষায় অংশগ্রহণ জীবনযুদ্ধে এক অদম্য প্রতিবন্ধী রাসেলের গল্প

পা দিয়ে লিখে জেডিসি পরিক্ষায় অংশগ্রহণ জীবনযুদ্ধে এক অদম্য প্রতিবন্ধী রাসেলের গল্প

সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি : দুই হাত নেই। ডান পা নেই। বাঁ পা রয়েছে, তাও আবার স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক ছোট। পায়ের আঙুলের ফাঁকে কলম রেখে জেডিসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে প্রতিবন্ধী রাসেল। প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী রাসেল মৃধা সিংড়া পৌর শহরের শোলাকুড়া মহল্লার দিনমজুর আব্দুর রহিম মৃধার ছেলে ও শোলাকুড়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার ছাত্র। অভাব-অনটনের মাঝেও প্রতিবন্ধী রাসেল মৃধার লেখাপড়ার প্রতি আলাদা স্পৃহা দেখে তার দরিদ্র বাবা-মা হাল ছাড়েননি। তার উচ্চ শিক্ষার সেই স্বপ্ন আজ পূরণ হতে চলেছে। সে বিগত দিনে পিএসসি পরীক্ষায় সাফল্যের সাথে উত্তীর্ণ হয়।

রাসেলের মা লাভলী বেগম জানান, দুটি সন্তান নিয়ে তিনি সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিবন্ধী এই ছেলের বেঁচে থাকার জন্য একটি কর্মই তাদের আশা। সরকারি সহায়তা পেলে রাসেলকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলবেন।পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে রাসেলের পাশে দাঁড়ালেন সিংড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুশান্ত কুমার মাহাতো। ইউএনও প্রতিবন্ধী রাসেলের লেখাপড়ার প্রতি প্রবল আগ্রহ দেখে মুগ্ধ হন। এসময় নগদ অর্থ ও একটি হুইল চেয়ার প্রদানসহ তার লেখাপড়ার দায়িত্ব নেন।  গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় রাসেলের জন্য একটি গৃহ নির্মাণ করে দেয়ারও প্রতিশ্রুতি দেন।

ইউএনও সুশান্ত কুমার মাহাতো বলেন, রাসেলের যে দুই হাত ও একটি পা নেই এটা কোন বাধা না, মনোবলটাই আসল। তার উচ্চ শিক্ষা চালিয়ে যেতে সবরকম সহযোগিতা করা হবে। আর এ উপজেলায় একটি শিক্ষা কল্যাণ ট্যাস্ট অচিরেই করা হবে। তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসক মো: শাহরিয়াজ মহোদয় তার লেখাপড়ার জন্য ২৫ হাজার টাকা বরাদ্দ করেছেন।