পরিবারের পাঁচ সদস্যকে গুলি করে হত্যা করলো কিশোর

পরিবারের পাঁচ সদস্যকে গুলি করে হত্যা করলো কিশোর

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্য আলাবামায় ঘটেছে এক মর্মান্তিক ঘটনা। মাত্র ১৪ বছর বয়সী এক কিশোর তার পরিবারের পাঁচ সদস্যকে গুলি করে হত্যা করেছে। তবে পিস্তল ফেলে দেয়ার আগে সে নিজেই পুলিশকে খবর দিয়ে হত্যার কথা জানায়। 

সরকারি কর্মকর্তাদের বরাতে মার্কিন গণমাধ্যমগুলো দেশটির সর্বশেষ এই বন্দুক হামলায় হতাহতের খবর জানিয়েছে। আলাবামার লিমস্টোন কাউন্টির শেরিফ কার্যালয়ের এক মুখপাত্র এবিসিসহ বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমকে বলছে, গতকাল সোমবার রাতে এলকমেন্ট শহরে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

শেরিফ কার্যালয় কিশোরের গুলিতে তার পরিবারের পাঁচ সদস্য নিহত হওয়ার খবরটি নিশ্চিত করেছে। তাদের মধ্যে তিনজন ঘটনাস্থলে এবং বাকি দুজন হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যায়। এক টুইট বার্তায় তারা জানিয়েছে, ‘কিশোর পরিবারের পাঁচ সদস্যকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে।’


সরকারি ওই কার্যালয় আরও জানিয়েছে, ‘কিশোরের সাক্ষাতকার নেয়া হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে সে নিজগৃহে তার পরিবারের পাঁচ সদস্যকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। অস্ত্রের অবস্থান শনাক্তে সে এখন আমাদের সাহায্য করছে। নয় মিলিমিটার দৈর্ঘের একটি হাতবন্দুক পাশেই ফেলেছে বলে জানিয়েছে সে।’

যুক্তরাষ্ট্রে সম্প্রতি আশঙ্কাজনকহারে বন্দুক হামলায় নিহতের ঘটনা বেড়েই চলেছে। গত সপ্তাহে দেশটির টেক্সাসে এক বন্দুক হামলায় সাতজন নিহত ও ২২ জন আহত হন। নিহতদের মধ্যে নারী ছাড়াও একটি ছোট্ট শিশুও ছিল।

গত মাসে পরপর দুদিনে দুটি বন্দুক হামলার ঘটনা ঘটে দেশটিতে। প্রথমটি টেক্সাসের এল পাসোতে। যেখানে বন্দুক হামলায় ২২ জন নিহত এবং ২৪ জন আহত হয়। পরদিন ওহাইও অঙ্গরাজ্যের ডেটনে অপর একটি বন্দুক হামলায় ৯ জন নিহত এবয়ং ২৭ জন আহত হয়।