নির্বাচন এক ঘণ্টাও পেছাতে চায় না আওয়ামী লীগ

নির্বাচন এক ঘণ্টাও পেছাতে চায় না আওয়ামী লীগ

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচন এক ঘণ্টাও পেছাতে চায় না আওয়ামী লীগ। নির্দিষ্ট সময়ে নির্বাচন হবে। বিএনপি যে দাবি করেছেন তা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য নয়, বানচাল করার জন্য।

বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) সচিবালয়ে নিজ সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

নয়াপল্টনে বুধবার পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের যে ঘটনা ঘটেছে তা পূর্ব পরিকল্পিত উল্লেখ করে কাদের বলেন, পরিকল্পনা নিয়ে তারা পুলিশেরে ওপর হামলা চালিয়েছে। এটা তারা নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করা ডেমো দেখিয়েছে। আর কোনো অশুভ শক্তি বাংলাদেশে নির্বাচন বানচাল করতে পারবে না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এবার কোনো অশুভ শক্তি নির্বাচন বানচাল করতে পারবে না। এটা করতে গেলে জনগণ তা প্রতিরোধ করবে। বিএনপি নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট করার যে পরিকল্পনা করছে গতকাল বুধবার তার ডেমু দেখিয়েছে। তাদের উদ্দেশ্য এখন ধোঁয়াশার মধ্য রয়েছে। যা সাধারণ মানুষের মধ্যে আস্থার সংকট তৈরি করছে।

তিনি বলেন, নির্বাচন হবেই, কোনো অশুভশক্তি আটকাতে পারবে না। নয়াপল্টনে বিএনপির অফিসের সামনে পুলিশের ওপর যে হামলা হয়েছে তা বিএনপির পূর্ব পরিকল্পিত। একদল মুখোশধারী এসে পুলিশের গাড়িতে আগুন দিয়েছে, গাড়ির ওপর দাঁড়িয়ে নাচানাচি করেছে এটা কিসের আলামত আমি তা জানতে চাই?

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বুধবারের ঘটনায় কোনো তদন্ত হবে কিনা সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে নির্বাচন কমিশন। আমরা এবিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারি না। আমরা দেখতে চাই নির্বাচন কমিশন কি করে।

মির্জা ফখরুলের সমালোচনা করে কাদের বলেন, ফখরুল সাহেব একজন ভালো মানুষ। তিনি কিভাবে এতো মিথ্যা কথা বলেন। তিনি বলেছেন, ছাত্রলীগ নাকি পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে। নয়াপল্টনের অফিসে বসে তিনি ভাঙা রেকর্ড অবিরাম চালিয়ে যাচ্ছেন। এতো মিথ্যা কথা তিনি কিভাবে বলেন।

নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচনকালীন সরকার বলে সংবিধানে কোনো কিছু নেই। আছে শুধু বর্ধিত সরকার। পৃথিবীর অন্যান্যদেশেও তাই হয়।

মনোনয়ন বিষয়ে তিনি বলেন, মনোনয়নের বিষয়ে দুই-তিন দিনের মধ্য সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। কিছু কিছু দল তাদের প্রস্তাব দিয়েছে। জাতীয় পার্টি শিগগিরই তাদের তালিকা পাঠাবে। যুক্তফ্রন্টও তালিকা তৈরি করছে। আওয়ামী লীগ প্রথমে নিজেদের মধ্য মনোনয়ন বন্টন করবে, পড়ে অন্যদের দেবে। পর্যায়ক্রমে আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টি, যুক্তফ্রন্ট ও ১৪দলের সঙ্গে আলোচনা করবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এবার আমরা প্রার্থী বাছাইয়ের আগে একটি সার্ভে করেছি। সে সার্ভের রিপোর্টের ওপর নির্ভর করে মনোনয়ন দেব। এক্ষেত্রে দেখা হবে যে প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়ী হবে তাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে। আমরা বিজয়ের ব্যাপারে শতভাগ নিশ্চিত।