নাফ নদীর সীমানায় রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘুরে দেখলেন প্রিয়াঙ্কা

নাফ নদীর সীমানায়  রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘুরে দেখলেন প্রিয়াঙ্কা

কক্সবাজার প্রতিনিধি : রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের অন্যতম স্থান কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তের হারিখালী এলাকা পরিদর্শন করেছেন বলিউড অভিনেত্রী ও ইউনিসেফ’র শুভেচ্ছা দূত প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।  মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে তাকে নিয়ে হারিয়াখালী আসে ইউনিসেফ দল। রয়েল টিউলিপ হোটেল থেকে মেরিন ড্রাইভ হয়ে ইউনিসেফ’র গাড়িতে করে সকালে হারিখালী ভাঙা নামক সীমান্তে পৌঁছান তারা।

রোহিঙ্গারা যে পথে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করছে, ভাঙার সেই স্থানে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। গাড়ি থেকে নেমে সেই পথে তিনি কিছু সময় হাঁটাহাঁটি করেন। সেখান থেকে নাফ নদী আর মিয়ানমার দেখা যায়। চলে আসার সময় মসজিদের সামনে গাছের নিচে দাঁড়িয়ে ১৫ রোহিঙ্গা শিশুর সঙ্গে কথা বলেন। এসময় রোহিঙ্গা শিশুদের তিনি খোঁজ-খবর নেন। সেখান থেকে সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে গাড়িতে করে টেকনাফের নেটং (উটনি) পাহাড়ের উদ্দেশে রওনা হন তিনি।

এই পথে নাফ নদী দিয়ে মিয়ানমার থেকে কীভাবে রোহিঙ্গারা অনুপ্রবেশ করছে, তা প্রিয়াঙ্কার সামনে তুলে ধরা হয়। এখানে ১৫ মিনিট অবস্থান করেন তিনি। এরপর টেকনাফের লেদা বিজিবি চৌকির কাছে ইউনিসেফ পরিচালিত শিশুদের খেলাধুলার জন্য তৈরি স্থান পরিদর্শন করেন। সেখান থেকে সকাল ১১টার দিকে তিনি টেকনাফের লেদা মেকসিফট স্যাটেলমেন্ট ক্যাম্পে যাওয়ার কথা থাকলেও গাড়ি থেকেই তা দেখে অতর্কিত ভাবে বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চলে যান। এসময় তিনি রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেন। রোহিঙ্গা বেশ কয়েকজন শিশুর খোঁজ খবর নেন এবং তাদের সঙ্গে সময় কাটান। এরপর বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে ইউনিসেফ’র গাড়িতেই মেরিন ড্রাইভ হয়ে আবার রয়েল টিউলিপ হোটেলে ফিরে যান।

এসময় টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়া, পুলিশ পরির্দশক রাজু আহমেদ ও ইউনিসেফ’র কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। টেকনাফ থানার ওসি রনজিত বড়ুয়া বলেন, সোমবার বিকেলে বাহারছড়ায় অস্থায়ী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যান প্রিয়াংকা। সেখানে সবার সঙ্গে খোলামেলা ভাবে কথা বলেন তিনি। এ সুযোগে অনেকে সেলফির নামে তামাশা করেছেন। ফলে মঙ্গলবার কঠোরভাবে সবার কাছ থেকে দূরে থেকেছেন বলিউড সেলিব্রেটি ও সাবেক বিশ্ব সুন্দরি প্রিয়াংকা। তার চাওয়া মতো নিরাপত্তা কঠোর ভাবে পালন করা হয়েছে। সাধারণ মানুষ নয় গণমাধ্যমকর্মী এবং স্থানীয় নিরাপত্তা বাহিনীর কাছ থেকেও দূরে থাকার চেষ্টা করেছেন তিনি। বলিউডেও খ্যাতির তুঙ্গে থাকা ভারতীয় এ অভিনেত্রী সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উড়োজাহাজে করে কক্সবাজার পৌঁছান। কক্সবাজার বিমানবন্দর থেকে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া সড়কপথে গিয়ে ইনানীর হোটেল রয়েল টিউলিপে যান। সেখান থেকে বিকেল ৪টায় তিনি মেরিনড্রাইভ সড়ক হয়ে টেকনাফের বাহারছড়ার শামলাপুর রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। জাতিসংঘের শিশু তহবিল (ইউনিসেফ) এর শুভেচ্ছা দূত হিসেবে ‘ফ্যাশন’ খ্যাত অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে এসেছেন। কক্সবাজারের পুলিশ সুপার আফরাজুল হক টুটুল  জানান, টেকনাফের সীমান্ত ও রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে বেলা তিনটার দিকে তিনি ইনানীর হোটেল রয়েল টিউলিপের উদ্দেশ্যে টেকনাফ ত্যাগ করেন। বুধবার সকালে প্রথমে উখিয়ার জামতলী ও পরে বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করবেন। বৃহস্পতিবার (২৪ মে) সকালে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করার পর কক্সবাজার ত্যাগ করবেন বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা।