নবাবগঞ্জে গৃহবধূকে `পিটিয়ে হত্যা', স্বামী গ্রেপ্তার

নবাবগঞ্জে গৃহবধূকে `পিটিয়ে হত্যা', স্বামী গ্রেপ্তার

ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় পারিবারিক কলহের জেরে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে তার স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নবাবগঞ্জ থানার ওসি মোস্তফা কামাল জানান, নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বুধবার রাতে ওই নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত লায়লা (৩০) গাইবান্ধা জেলার কনচিপাড়া এলাকার মো. ফিরোজের স্ত্রী এবং একই জেলার বায়দাখালী এলাকার লালু সমশেরের মেয়ে। এ ঘটনায় বুধবার রাতে লায়লার ভাই তাজু ফিরোজকে (৩৫) একমাত্র আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। ফিরোজকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানান ওসি।  

ফিরোজের বাড়ির মালিক বাচ্চু  বলেন, তিন ছেলে ও স্ত্রীকে নিয়ে গত দুই মাস আগে তার বাড়িতে ভাড়া ওঠেন ফিরোজ। তারা ইট ভাঙ্গার কাজ করতেন। “পারিবারিক কলহের জেরে বুধবার সন্ধ্যায় ফিরোজের সঙ্গে লায়লার কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ফিরোজ তার স্ত্রীকে মারধর শুরু করেন।”

তিনি বলেন, এক পর্য়ায়ে লায়লা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে ফিরোজ স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক লায়লাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওসি মোস্তফা বলেন, লায়লার মৃত্যুর পর হাসপাতাল কর্তপক্ষ থানায় খবর দিলে তারা গিয়ে লাশ উদ্ধার এবং এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে তার স্বামীকে গ্রেপ্তার করেন। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।