নদী দখল-দূষণ চলছেই

নদী দখল-দূষণ চলছেই

আমাদের নদ-নদী ও হাওড়-জলাশয় বিপন্ন হওয়ায় বর্তমানে এক ভয়াবহ চিত্র দেখা যাচ্ছে। গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত খবর প্রায় প্রতিদিনই দেখতে পাওয়া যায়। বিগত দুই তিন দশকে নদ-নদীর বিপন্নতা দেখা দিয়েছে সবচেয়ে বেশি। এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে জাতীয় অর্থনীতিতে। আর নদ-নদী বিপন্ন হয়েছে দখল ও দূষণের কারণে। এসব দখল ও দূষণের জন্য দায়ী হচ্ছে প্রভাবশালী-ক্ষমতাশালীরা। নদী দূষণ ও দখল পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ। তা সত্ত্বেও এ দেশে এটা স্বাভাবিক নিয়মে পরিণত হয়েছে। পরিবেশবাদী সংগঠন ও পরিবেশবাদীরা এ ব্যাপারে যতই সোচ্চার হোক না কেন কোনো কাজ হচ্ছে না। যারা পরিবেশ দূষণ করছে তারা কেবল প্রকৃতির শত্রুই নয় মানুষেরও শত্রু।

কারণ মানুষের জীবনকে বিপন্ন করছে তারা। অথচ সরকার এ ব্যাপারে একেবারেই উদাসীন। নদী দূষণ ও দখল, গাছ কাটা, পাহাড় কাটা, ফসলি জমিতে ইটভাটা নির্মাণের মাধ্যমে পরিবেশের ক্ষতি করা এসব কোনো ব্যাপারেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তৎপরতা চোখে পড়ে না। সারা দেশের নদী ও খালগুলো উদ্ধার করে যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা গেলে এসব উৎসের পানি সেচকাজেও ব্যবহার করা যাবে। নদী দূষণ বন্ধ করা গেলে এসব উৎস থেকে বিপুল পরিমাণ মৎস্য সম্পদ আহরণ করা যাবে। এ জন্য চারপাশের প্রাকৃতিক পরিবেশ সুরক্ষায় জনগণকে সচেতন করে তুলতে হবে। তার আগে প্রভাবশালীদের কবল থেকে নদ-নদীর দখলকৃত জায়গা উদ্ধার করতে হবে। উদ্ধার করতে হবে দখল হয়ে যাওয়া খাল-বিল জলাশয়। দখলদারদের বিরুদ্ধে যাদের ভূমিকা রাখার কথা, তারা দায়িত্বে অবহেলা করলে সরকারকে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। সংশ্লিষ্ট সবার দায়িত্বশীল আচরণ ছাড়া পরিবেশের সুরক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়।