‘দেশহারা মানুষের সংগ্রামে কবিতা’ স্লোগানে জাতীয় কবিতা উৎসব শুরু

 ‘দেশহারা মানুষের সংগ্রামে কবিতা’ স্লোগানে জাতীয় কবিতা উৎসব শুরু

ঢাবি প্রতিনিধি : ‘দেশহারা মানুষের সংগ্রামে কবিতা’ স্লোগানকে ধারণ করে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে দুইদিনব্যাপী কবিতা উৎসব শুরু হয়েছে।  বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশ^বিদ্যালয়ের কেদ্রীয় গ্রন্থাগার চত্বরে উৎসবের উদ্বোধন করেন কবি আসাদ চোধুরী। জাতীয় কবিতা পরিষদ ৩২ তম বারের মত এ উৎসবের আয়োজন করছে। আজ শুক্রবার জাতীয় কবিতা উৎসবের সমাপনী দিন।

উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানে কবি আসাদ চৌধুরী বলেন, আজকে আমাদের মধ্যে মূল্যবোধের বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। সবুজ মাঠ, গ্রামীণ সংস্কৃতি, নদীমাতৃক বাংলাদেশের ভিতর দিয়ে যে অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক, মানবিক মূল্যবাধ গড়ে উঠেছিল তা আজ ভূলুণ্ঠিত হচ্ছে। আজ শিক্ষকরা লাঞ্চিত হচ্ছেন, রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের কামনায় একদল মানুষ উগ্র হয়ে উঠেছে। নির্বাচন সামনে আসায় তাদের ভাষা পাল্টে গেছে। ভাষার যে একটা লালিত্য আছে, লাবণ্য, মাধুর্য ও আভিজাত্য আছে তার সবই আজ পাল্টে যাচ্ছে। এসব দেখে আমি বিব্রতবোধ করি।

অনুষ্ঠানে ভারতের কবি আশিস সান্যাল বলেন, তিস্তার পানি সমস্যা আজো সমাধান হয়নি। আমরা বুদ্ধিজীবি ও কবিসমাজ এটা মেনে নিতে পারিনি। আমরা চাই বাংলাদেশ তাদের ন্যায্য হিসাব পাক।
সভাপতির বক্তব্যে কবি ড. মু. সামাদ বলেন, আজ ক্ষুধার কামড়, সমুদ্রের আগ্রাসী ঢেউয়ে জর্জরিত লক্ষ-কোটি মানুষ। পৃথিবীর সব কবিরা যুগপৎ বিষন্ন ও প্রতিবাদমুখর। সকল কালো অমানবিকতার বিপরীতে কবির কলমে অবিরাম ঝরছে শাণিত প্রতিবাদ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উৎসবের আহ্বায়ক রবিউল হুসাইন, সাধারণ সম্পাদক তারিক সুজাত, সাহিত্যিক আনিসুল হক, কাজী রাজী, আনিসুর রহমান প্রমুখ।
আয়াজকরা জানান, এবারের উৎসব যুক্তরাজ্য, সুইডেন, ক্যামেরুন, মিশর, মেক্সিকো, জাপান, তাইওয়ান, কলম্বিয়া ও পাশর্^বর্তী দেশ ভারতসহ ১০টি দেশের কবি-সাহিত্যিকগণ অংশগ্রহণ করেছেন। বিদেশ থেকে আগত অতিথিরা হলেন, যুক্তরাজ্যের আগনস মিড্স, সুইডেনের আরন জনসন, ভিভকা সেগ্রন, ক্রিস্টিয়ান কার্লসন, ক্যামরুনের জয়স আশুনতানতাং, মিশরের ইব্রাহিম এলমার্সি, জাপানের টেন্ডা তানজিন, তাইওয়ানের মিয়াও ইতু, কলম্বিয়ার মারিও ম্যাথর, ভারতের আশিস সান্যাল, সংঘ মিত্রা চক্রবর্তী, প্রদীপ কর, অলাক বদ্যাপাধ্যায়, দিলীপ দাস এবং আবৃত্তিশিল্পী সমিত্র মিত্র।