দীর্ঘ পরিযান পথিক ইউরেশীয়-সিঁথিহাঁস

দীর্ঘ পরিযান পথিক ইউরেশীয়-সিঁথিহাঁস

সিলেট প্রতিনিধি : চারদিকে জনহীন। এ শূন্যতায় সময় মিলিয়ে যেতে যেতে হঠাৎ জলচর পাখিদের ডাক সিলেট অঞ্চলের বাইক্কাবিলের বহু পুরনো সৌন্দর্য। আপন মুগ্ধতায় রাঙানো। এই জলজ পাখির সৌন্দর্যে রাঙিয়ে ওঠে আগত পর্যটকদের হৃদয়ও। এরই মধ্যে দীর্ঘ পরিয়ান শেষে বাইক্কাবিলে এসে গেছে ‘ইউরেশীয়-সিঁথিহাঁস’। অন্য পরিযায়ী পাখির মতো এ হাঁসেরাও প্রতি বছরের মতো উড়ন্ত পথিক হয়ে চলে এসেছে। শুধু এ হাঁসই নয়, শীতের মাত্রা বাড়তেই বাইক্কাবিল এখন পরিযায়ী পাখিতে মুখরিত।সম্প্রতি বাইক্কাবিলের পাখি পর্যবেক্ষণ টাওয়ারে উঠে দূরবীক্ষণ যন্ত্রে চোখ রেখে বিলের দিকে নিশানা নিক্ষেপে করতেই খুঁজে পাওয়া যায় ইউরেশীয়-সিঁথিহাঁস। দূরবীনে চোখ রেখে চলে আগত পর্যটকদের পাখিদের দেখার বিষয়টি বাড়তি ভালোলাগার জন্ম দেয়। শীতের হাত থেকে রক্ষার জন্য উত্তরের হিমপ্রধান অঞ্চলগুলো থেকে অনেক প্রজাতির পাখিই পরিযায়ী হয়।

পাখিদের মধ্যে সাধারণত তিন ধরনের পরিযান দেখা যায়। এগুলো হলো, স্বল্পদৈর্ঘ্য পরিযান, মধ্যদৈর্ঘ্য পরিযান এবং দীর্ঘদৈর্ঘ্য পরিযান। সিঁথিহাঁস দীর্ঘদৈর্ঘ্য পরিযানের পাখি। এরা হাজার হাজার মাইল দূরত্বের পথ অনায়াসে উড়ে যেতে পারে। ক্লান্তিহীন ও বিশ্বস্ত পাখা তাদের এভাবে বাঁচিয়ে রেখেছে বছরের পর বছর ধরে।পাখি-পর্যবেক্ষক ও আলোকচিত্রী ওমর শাহাদাত বলেন, শীতে বাংলাদেশে পরিযায়ী হিসেবে যে প্রায় ত্রিশ প্রজাতির হাঁস আসে। তারমধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যায় দেখা যায় এই ইউরেশীয় সিঁথিহাঁস। এরা আমাদের দেশের সুলভ পরিযায়ী হাঁস। এরা বেশ দৃষ্টিনন্দন।

পুরুষ হাঁসের মাথায় হলুদ রঙের সিঁথি আছে বলেই এ নামকরণের কারণ। মিশ্র হাঁসের ঝাঁক থেকে সহজেই আলাদা করা যায় এদের। শীতকালে বরিশাল, চট্টগ্রাম, ঢাকা, রাজশাহী ও সিলেট বিভাগের উপকূলসহ নদী ও হাওরে দেখা যায়। ‘সিঁথিহাঁসের দৈর্ঘ্য ৫০ সেমি যুগল সিঁথিহাঁস এবং ওজন ৬৭০ গ্রাম। এরা ধূসর নীলচে ঠোঁটওয়ালা মাঝারি আকারের হাঁস। পুরুষ ও মেয়ে হাঁসের চেহারায় পার্থক্য রয়েছে। প্রজননকালে পুরুষ হাঁসের স্পষ্ট হলুদ কপাল হয়। মাথা তামেটে, ডানার নিচের অংশ ধূসর ও লেজের নিচে কালো থাকে। লালচে বাদামি মেয়েহাঁসের ডানার নিচে পিতাভ। পেট সাদা ও ডানা খয়েরি। এরা সাধারণত অগভীর জলাশয় যেমন হ্রদ, নদী, হাওর, বিলে বিচরণ করে।