দখলী বনভূমি উদ্ধার হোক

দখলী বনভূমি উদ্ধার হোক

পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ সংসদকে জানিয়েছেন, দেশে মোট বনভূমির পরিমাণ প্রায় ২৬ লাখ হেক্টর। এর মধ্যে এ পর্যন্ত ২ লাখ ৬৮ হাজার একর সরকারি বনভূমি বেদখলে রয়েছে। গত মঙ্গলবার সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এ তথ্য জানান। বনমন্ত্রী বলেন, দেশের মোট আয়তনের শতকরা ২৫ ভাগ বনভূমি থাকার কথা। কিন্তু আমাদের ১৭ দশমিক ৬২ শতাংশ বনভূমি রয়েছে। এর মধ্যে বহুদিন আগে থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলের সরকারি বনাঞ্চলের নিকটবর্তী জনসাধারণের চাষাবাদ, বসতি স্থাপন, রাস্তাঘাট নির্মাণ ইত্যাদি কারণে জবর দখল হয়ে আছে। এ ছাড়া কোনো স্থান পাকা ইমারত, শিল্পায়ন, পাকা সড়ক নির্মাণ, হাট-বাজার স্থাপন ইত্যাদি কারণে বেদখল হয়ে আছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, যেখানে কোনো দেশের জন্য কমপক্ষে পঁচিশ শতাংশ বনভূমি থাকা আবশ্যক, সেখানে বাংলাদেশে বনভূমির পরিমাণ মাত্র ৭ শতাংশ। তারপরও এর পরিমাণ কমছে দিন দিন। সারা দেশে উন্নয়নের নামে যে গাছ কাটার মহোৎসব চলে তা বন্ধ করতে হবে।

মানুষসহ সমগ্র প্রাণিজগতের প্রতি প্রকৃতির অমূল্য অবদান অরণ্য। মানব সমাজকে অর্থনৈতিক দিক থেকে লাভবান হওয়ার ক্ষেত্রে নানাভাবে সহায়তা করা ছাড়াও পরিবেশ দূষণমুক্ত করে রাখে। উপরন্তু জলবায়ুর উপাদান যেমন উষ্ণতা, বর্ষণ, আর্দ্রতা ইত্যাদির ওপর প্রভাব বিস্তার করে অরণ্যগুলো আবহাওয়া তথা জলবায়ু বহু পরিমাণে মানব সমাজের অনুকূল করে তোলে। সত্য বটে, গত ক’বছরে বৃক্ষরোপণে জনসচেতনতা বেড়েছে। তবে তার তুলনায় গাছ কাটা হচ্ছে অনেক বেশি। এ জন্য বন ও পরিবেশ বিভাগকেও অনিয়ম করা চলবে না। দখল হয়ে যাওয়া বনগুলোকে দখলমুক্ত করা অতি জরুরি।