ত্রিপুরা পল্লীর দুই কিশোরী হত্যাকাণ্ডের শিকার: পুলিশ

ত্রিপুরা পল্লীর দুই কিশোরী হত্যাকাণ্ডের শিকার: পুলিশ

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ত্রিপুরা পল্লীতে যে দুই কিশোরীর ঝুলন্ত লাশ পাওয়া গেছে, তারা হত্যাকাণ্ডের শিকার বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এক যুবককে গ্রেপ্তারের পর পুলিশ বলছে, আবুল হোসেন (২৫) নামে এই যুবক প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে প্রত্যাখ্যাত হয়ে সহযোগীদের নিয়ে এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় সুকলতি ত্রিপুরা (১৬) ও ছবি রানী ত্রিপুরা (১৩) নামের ওই দুই বান্ধবীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর পুলিশ অভিযান চালিয়ে সীতাকুণ্ড সদরের মাহদেবপুর এলাকা থেকে হোসেনকে গ্রেপ্তার করে।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সীতাকুণ্ড সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শম্পা রাণী সাহা বলেন, প্রেমের প্রস্তাবে ব্যর্থ হয়ে হোসেন ও তার সহযোগীরা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

“সুকলতিকে কিছুদিন আগে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হয়ে ছিল হোসেন। এ ঘটনায় স্থানীয়ভাবে সালিশ হয় এবং আবুলকে ভর্ৎসনাও করা হয়। অপমানের প্রতিশোধ নিতে সে এ ঘটনা ঘটায় বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।”

পুলিশ কর্মকর্তা শম্পা জানান, সুকলতিকে হত্যা করতে গেলেও ছবি রানী তা দেখে ফেলায় তাকেও হত্যা করা হয়। দুজনকেই দড়িতে ঝুলিয়ে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় সুকলতি ত্রিপুরার বাবা পুনেল কুমার ত্রিপুরা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেছেন বলে সীতাকুণ্ড থানা পুলিশ জানায়।

সীতাকুণ্ড থানার এসআই জয়নাল আবেদিন বলেন, দুই লাশের প্রাথমিক সুরতহাল প্রতিবেদনে গলায় রশির দাগ দেখা গেছে।

ময়নাতদন্তের জন্য লাশ চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।