তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়তে পারে সিলেট নগরী

তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়তে পারে সিলেট নগরী

অপরিকল্পিতভাবে সিলেটে গড়ে উঠেছে অসংখ্য ভবন। নির্মিত এসব ভবনগুলিতে নেই অগ্নিনির্বাপণের কোনও ব্যবস্থা। অন্যদিকে আবহাওয়া অফিস বলছে ভূমিকম্পের ঝুঁকিতে রয়েছে সিলেট। চার থেকে পাঁচ মাত্রার ভূমিকম্প হলে মৃত্যু হতে পারে কয়েক হাজার মানুষের। এছাড়া বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ড ঘটলে তা মোকাবেলা করার তেমন কোনও যন্ত্রপাতি নেই সিলেট ফায়ার সার্ভিসের। এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলছেন সিটি করপোরেশন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, একটু বড় ধরনের ভূমিকম্প হলেই তাসের ঘরের মতো ধসে পড়বে সিলেটের সব অট্টালিকা। প্রাণ হারাবেন কয়েক হাজার মানুষ। ধ্বংসস্তূপে পরিণত হবে সিলেট নগরী। এমনি ভূমিকম্প ঝুঁকিতে রয়েছে সিলেট বিভাগ।
আবহাওয়া অফিস বলছে, ভূমিকম্পের দুটি সংযোগস্থল সিলেটের পাশাপাশি। তাছাড়া ১৮৯৭ সালে বড় ভূমিকম্প হয়েছিল সিলেট অঞ্চলে। ডাউকির যে জায়গায় সে সময় বড় ভূমিকম্প হয়েছিলো সেখানে এখনও ফল্ট রয়েছে।  উত্তর, পূর্ব যেকোনো দিক থেকে ভূমিকম্প উৎপত্তি হলে ধ্বংসের মুখে পড়বে সিলেট। আগাম সতর্ক হওয়ার তাগিদ আবহাওয়া অফিসের।
সিলেটের আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী   জানান, ৫৩ হাজার ছোট-বড় ভবন রয়েছে সিলেট সিটিতে। ভূমিকম্প বা বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ড মোকাবেলায় কোনও পদক্ষেপ নেই ভবনগুলিতে। বিশাল বিশাল হাসপাতাল দালানগুলিতে নেই অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা, ইমার্জেন্সি সিঁড়ি, ধোয়া নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা, ফায়ার সেফটিক প্ল্যান।
তবে সিটি করপোরেশনের প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান বলেছেন, অগ্নিকাণ্ড মোকাবেলায় শিগগিরই ব্যবস্থা নেয়া হবে।
সিলেট ফায়ার সার্ভিসের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক জাবেদ হোসেন মো. তারেক বলেন, বড় ধরনের ভূমিকম্প বা অগ্নিকাণ্ড  হলে তা মোকাবেলা করার জন্য পর্যাপ্ত জনবল এবং জিনিসপত্র নেই তাদের।
সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলছেন, সিটি করপোরেশনের অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী যারা ভবন নির্মাণ করেননি অথবা ভবনগুলিতে অগ্নিকাণ্ড বা ভূমিকম্প মোকাবেলার কোনও ব্যবস্থা না রেখে ভবন নির্মাণ করেছেন তাদের মধ্য অভিযান শুরু হয়েছে।