ট্রেনের বিলম্বকে কাজে লাগিয়ে আয় সাড়ে ৭ হাজার ইউরো

ট্রেনের বিলম্বকে কাজে লাগিয়ে আয় সাড়ে ৭ হাজার ইউরো

গত এক বছর ধরে সিডিউল মতো জার্মানিতে ট্রেন চলাচল করছে না। প্রায়ই বিলম্ব ঘটেছে। ট্রেনের এই বিলম্বিত সময়ে উলের স্কার্ফ বুনে নিলামে তোলেন দেশটির এক নারী যাত্রী৷ বেশ চড়া দামেই বিক্রি হয়েছে তা। নিলামে এক ক্রেতা সেই স্কার্ফ কিনেছেন সাত হাজার ৫৫০ ইউরোতে৷

ডয়েচে ভেলে খবর দিয়েছে মিউনিখ শহরের সেই নারী ট্রেন বিলম্বের হিসাব রাখতে শুরু করেন স্কার্ফ বোনা৷ একেক সময়ে একেক রঙ দিয়ে দেড় মিটার, অর্থাৎ প্রায় ৫ ফুট লম্বা স্কার্ফ বুনে ফেলেন তিনি৷ তারপর সেই স্কার্ফ বিক্রির জন্য ই-বেতে নিলামে তোলেন ৷

স্কার্ফটির উলের রঙই বিলম্বের সময় নির্দেশ করে বলে জানিয়েছেন সেই নারীর মেয়ে সারাহ ওয়েবার৷ তিনি জানান, তার মা সব সময় গণপরিবহনে যাতায়াত করেন৷ ট্রেন আসতে প্রায়ই বিলম্ব হওয়ায় তিনি ভীষণ বিরক্ত হয়ে এক পর্যায়ে নিজে নিজে হিসাব রাখার একটি পদ্ধতি বের করেন।

সারাহ আরও জানান, প্রতিদিন দুই সারি করে উল বুনে স্কার্ফটি বানান তার মা৷ ট্রেন আসতে পাঁচ মিনিট বা তার কম বিলম্ব হলে ধূসর রঙে বুনতেন তিনি৷ ৫ থেকে ৩০ মিনিট দেরি হলে গোলাপী উলে বুনতেন৷ আর আসা-যাওয়ার উভয় ট্রেন বিলম্ব হলে এবং ৩০ মিনিটের বেশি দেরি করলে লাল রঙে বুনতেন তিনি৷

স্কার্ফটি বোনা শেষ হলে মায়ের ইচ্ছা অনুযায়ী সারাহ সেটি টুইটারে বিক্রির জন্য একটি পোস্ট দেন৷ এতে ব্যপক সাড়া পান৷ নিলামে সেই স্কার্ফ পেতে ৪৫ জন আগ্রহী ১৩৪টি দর হাঁকেন। পরে সেটি বিক্রি হয় সাত হাজার ৫৫০ ইউরোতে৷

পরে এক টুইটার বার্তায় সারাহ লিখেছেন, তিনি ও তার মা কল্পনাও করতে পারেননি এমনটি ঘটতে পারে৷ তারা ভীষণ আনন্দিত৷ মায়ের ইচ্ছা নিলামে পাওয়া অর্থ জার্মান রেলওয়ে পরিচালিত দাতব্য সংস্থায় দেবেন৷

উল্লেখ্য, সিডিউল বিপর্যয় রোধে গত রোববার জার্মান রেল বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে। ট্রেনের বিলম্ব ও স্থগিতের ঘটনা হ্রাসে একজন বিশেষজ্ঞও নিয়োগ দিয়া হয়েছে৷ এখন থেকে অযৌক্তিক কারণে ট্রেনের বিলম্ব হলে চলে যেতে পারে চালকের চাকরিও৷