টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য

জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অনুযায়ী ২০৩০ সালের মধ্যে অতিদারিদ্র্যের ৩ শতাংশের নিচে নামিয়ে আনতে হবে। প্রবৃদ্ধির বর্তমান ধারা অব্যাহত থাকলে ২০৩০ সালে এ হার ৫ দশমিক ৯৮ শতাংশ হবে। এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে হলে গড়ে ৮ দশমিক ৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে হবে। গত বছরের জুলাইয়ে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে জাতিসংঘের পর্যালোচনা সভায় টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) বাস্তবায়ন প্রতিবেদন পেশ করা হয়। আশা প্রকাশ করা হয় যে, ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ প্রবৃদ্ধিতে শীর্ষ তিনটি দেশের মধ্যে একটি হবে। উদীয়মান অর্থনীতির দেশ হিসেবে বাংলাদেশের উজ্জ্বল সম্ভাবনার ধারাবাহিকতায় যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান পিডব্লিউসি জিডিপির ভিত্তিতে এটা মনে করে।

এর আগে জাতিসংঘ উন্নয়ন দেশগুলোর সামনে দারিদ্র্য বিমোচন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, শিশু মৃত্যু হার হ্রাস, শিক্ষা এবং খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনে মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল বা এমডিজি লক্ষ্য করে আসছিল। সে লক্ষ্য অর্জনে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশগুলার মধ্যে এগিয়ে থাকার ঈর্ষণীয় সাফল্য দেখাতে সক্ষম হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সাফল্যকে এখন মডেল হিসেবেও বিবেচনা করা হয়। বিশ্বের পশ্চাৎপদ দেশগুলোকে দ্রুত এগিয়ে যাওয়ার জন্য জাতিসংঘ যে এমডিজি লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করে দিয়েছিল তার সময়সীমা ছিল ২০১৫ সাল। উন্নত বিশ্বের সঙ্গে উন্নয়নশীল বিশ্বের পার্থক্য যেখানে আকাশ-পাতাল সে ক্ষেত্রে এ দূরত্ব কমিয়ে আনতে দ্রুত এগিয়ে যাওয়ার বিকল্প নেই। আমরা আশা করি ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালে উন্নত দেশের কাতারে যাওয়ার ঘোষিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সরকার সর্বোচ্চ আন্তরিকতা নিয়ে কাজ করে যাবে।