টাইগারদের অভিনন্দন

টাইগারদের অভিনন্দন

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে প্রাণঢালা অভিনন্দন। উল্লেখ করার মতো অবিস্মরণীয় জয় পেয়েছে টাইগাররা। আমরা, আনন্দিত ও উৎসাহিত যে, তিনটি টি-২০ ও দুটি টেস্ট ম্যাচের  প্রথমটিতেই ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ দৃষ্টিনন্দন জয় ছিনিয়ে নিয়েছে। দিল্লিতে এই বিজয় বাংলাদেশের ক্রিকেট প্রেমীদের কাছে ছিল আনন্দের দিন। একে তো ভারতের মাটিতেই খেলা আবার টি-টোয়েন্টি খেলায় ভারত পরাশক্তি। তা ছাড়া তাদের রয়েছে বিশ্ব সেরা ব্যাটিং লাইন আপ। বোলিং শক্তিতেও তারা আমাদের চেয়ে এগিয়ে ছিল। পরিসংখ্যানটি তাই বলে। তবে বোলিংটি আমরা ভালোই করেছি। সাকিব আল হাসানের বিরুদ্ধে আইসিসির নিষেধাজ্ঞায় বাংলাদেশ দল যখন মানসিকভাবে বিপর্যস্ত তখন টি-২০তে বহুল প্রত্যাশিত এই জয় টাইগারদের উজ্জীবিত হতে সাহায্য করবে। ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে এক পরীক্ষিত শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হলেও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে তেমন জাগরণ দেখাতে পারেনি মাঝে মধ্যে দুয়েকটি সাফল্য দেখানো ছাড়া। কেননা টি-টোয়েন্টি মানেই মার মার কাটকাট ব্যাটিং শৈলী।

তখন সে ধারণাকেই রীতিমতো দুমড়ে মুচড়ে ভেঙে চুরে অবিশ্বাস্য কি নতুন ইতিহাস গড়ল টাইগাররা। এবারের জয়ের নায়ক মুশফিকুর রহিম। জয়টি এসেছে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের অধিনায়কত্বে। ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচ ফিনিশ করলেন মাহমুদুল্লাহ, আর হার না মানা ৬০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরা হলেন মুশফিক। টি-টোয়েন্টি জয়ে মুশফিক শুধু নিজেই খেলেছেন তা নয়, খেলিয়েছেন গোটা টিমটাকেই। সে কারণে দুয়েকজন ছাড়া প্রায় সবাই এই জয়ে একটা অবদানও রেখে এসেছেন। মুশফিকের ওই অপরাজিত ৬০ রানের ইনিংসের প্লাবিত সৌন্দর্য ধারায় মাঝরাতেও গোটা দেশ ভেসে গেছে। প্রতিটা মুহূর্তে ভাবতে হবে প্রতিপক্ষকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। ১৬ কোটি মানুষের ভালোবাসা যাদের সঙ্গী, তাদের হারার কোনো সুযোগ থাকা উচিত নয়। মুশফিক বাহিনীকে আমাদের অভিনন্দন।