ঝালকাঠি-বরিশালসহ ৮ রুটে বাস চলাচল বন্ধ

ঝালকাঠি-বরিশালসহ ৮ রুটে বাস চলাচল বন্ধ

ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার রায়াপুরে অবৈধ বাসটার্মিনাল বন্ধে প্রশাসনের নির্দেশের প্রতিবাদে বুধবার (১ আগস্ট) দুপুর থেকে বরিশাল, পিরোজপুর, বাগেরহাটসহ ৮ রুটে বাস চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে যাত্রীরা পড়েছেন চরম দুর্ভোগে। অভ্যন্তরীণ ওইসব রুটে বর্তমানে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহনে যাত্রীদের চলাচল করতে হচ্ছে।

এতে যাত্রীদের যেমনি বাড়তি খরচ গুণতে হচ্ছে, তেমনি ঝুঁকিসহ যানবাহন সংকটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে।

ঝালকাঠির বাস মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক নাসির উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, ন্যায্য হিস্যার দাবিতে তৃতীয়বারের আন্দোলনে গত ২৪ জুন বিভাগীয় কমিশনারের উপস্থিতিতে বরিশাল-ঝালকাঠিসহ চার মলিক সিমিতির মধ্যে সমঝোতা বৈঠক হয় এবং কিছু সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

‌‘ওই বৈঠকের সিদ্ধান্ত অমান্য করে ঝালকাঠির বাস পটুয়াখালী-বরগুনা-কুয়াকাটা রুটে চলতে না দেয়ায় বরিশাল নগরের রুপাতলী বাসস্ট্যান্ড থেকে বুধবার সকাল থেকে ঝালকাঠিসহ ৮ রুটে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। পাশাপাশি আগের মতো রূপাতলী থেকে প্রায় ৪ কিলোমিটার দূরে ঝালকাঠি সড়ক বিভাগের শুরুতে রায়াপুরের অস্থায়ী বাসস্ট্যান্ড থেকে ৮ রুটে বাস চলাচল শুরু করে। কিন্তু দুপুরে জেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশ রায়াপুর থেকে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয় এবং বরিশালের রূপাতলী থেকে বাস চালনা করতে বললে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতি ও আন্তঃজেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা ৮টি রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়।’

তিনি আরও বলেন, চারদিন ধরে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বিভাগীয় কমিশনারের মিটিংয়ের রেজুলেশন বাস্তবায়ন হলেই আমরা বাস চালনা শুরু করবো।

নাসির উদ্দিন বলেন, তবে এর বাইরে বর্তমানে ছাত্রদের যে আন্দোলন চলছে, তাদের যে দাবি রয়েছে তার সঙ্গেও আমরা একমত রয়েছি। ছাত্রদের দাবি যৌক্তিক, আবার ছাত্রদের মধ্যে দুষ্কৃতিকারীরা ঢুকে যে গাড়ি ভাঙচুর করছে তার জন্য আমরা সড়কে পরিবহন ও যাত্রীদের নিরাপত্তা চাচ্ছি।