জিয়নের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি * অমিত-তোহা ৫ দিনের রিমান্ডে * শামীম ও মাজেদুল গ্রেফতার আটক

জিয়নের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি * অমিত-তোহা ৫ দিনের রিমান্ডে * শামীম ও মাজেদুল গ্রেফতার আটক

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদকে হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন। গতকাল শুক্রবার তিনি এই জবানবন্দি দেন। গতকাল শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় ডিবি পুলিশ তাকে আদালতে নিয়ে আসেন। এদিন আসামি জিয়ন স্বেচ্ছায় আদালতে জবানবন্দি দিতে সম্মত হয়। এরপর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক ওয়াহিদুজ্জামান ফৌজদারি কার্যবিধি আইনের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি রেকর্ড করার জন্য আদালতে আবেদন করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে জিয়নের জবানবন্দি গ্রহণ করেন বিচারক। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেওয়া হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার আরেক আসামি আকাশও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।
অমিত-তোহা ৫ দিনের রিমান্ডে
এদিকে, আবরার ফাহাত হত্যা মামলায় অমিত সাহা ও তোহাকে ৫ দিন করে রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। গতকাল শুক্রবার এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত। এর আগে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে আবরার হত্যা মামলায় গ্রেফতার ছাত্রলীগ নেতা অমিত সাহা ও এজহারভুক্ত আসামি হোসেন মোহাম্মদ তোহার ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সকাল এগারোটার দিকে রাজধানীর সবুজবাগ এলাকা থেকে অমিত সাহা ও বিকেল তিনটায় গাজীপুরের মাওয়া থেকে তোহাকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ। অমিত বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ১৬তম ব্যাচের ছাত্র। বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের উপ-আইনবিষয়ক সম্পাদক তিনি। আবরার হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই পলাতক ছিলেন তিনি। তার কক্ষেই ডেকে নিয়ে প্রথমে পেটানো হয়। হোসেন মোহাম্মদ তোহা বুয়েটের এমই বিভাগের ১৭তম ব্যাচের ছাত্র। তিনি এ মামলার মামলার ১১ নম্বর আসামি। উল্লেখ্য, গত ৬ অক্টোবর দিবাগত মধ্যরাতে বুয়েটের সাধারণ ছাত্র ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আবরার ফাহাদকে শেরে-ই-বাংলা হলের দ্বিতীয়তলা থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। ৭ অক্টোবর সকাল সাড়ে ৬টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার শরীরে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন ছিল।
সীমান্ত এলাকা থেকে শামীম আটক
আবরার হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে সাতক্ষীরা থেকে শামীম বিল্লাহ নামে এক বুয়েট শিক্ষার্থীকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। গতকাল বিকেলে তাকে আটক করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, শামীম ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল। এর আগে সকালে আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি মাজেদুল ইসলামকে সিলেট থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম বিভাগ তাকে গ্রেফতার করে বলে জানানো হয়।