জার্মানির পথে প্রধানমন্ত্রী

জার্মানির পথে প্রধানমন্ত্রী

জার্মানি ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে ছয় দিনের সরকারি সফরে মিউনিখের উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টা ২০ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি-০০১ ভিভিআইপি ফ্লাইটে সরাসরি মিউনিখের উদ্দেশে রওয়ানা হন প্রধানমন্ত্রী।

মিউনিখ নিরাপত্তা কাউন্সিলের সভায় যোগ দিতে প্রথমে জার্মানি যাবেন প্রধানমন্ত্রী। পরে সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রী সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করবেন।

স্থানীয় সময় বেলা সোয়া ১টার দিকে মিউনিখ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা শেখ হাসিনার।

টানা তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী মিলিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসে চারবারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবারের নতুন সরকার গঠনের পর এটিই তার প্রথম কোনো বিদেশ সফর।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৫-১৭ ফেব্রুয়ারি জার্মানির মিউনিখে ৫৫তম সম্মেলনে অংশ নেবেন। সেখানে প্রধানমন্ত্রী জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মেরকেলসহ বিশ্ব নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

মিউনিখ সম্মেলনে বিশ্বের ২৫ জনেরও বেশি রাষ্ট্র-সরকার প্রধানসহ উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মেলনে ‘জলবায়ু পরিবর্তনে নিরাপত্তা হুমকি’ ও ‘স্বাস্থ্য নিরাপত্তা বিষয়ক  গোলটেবিল বৈঠক’ সংক্রান্ত দুইটি সেশনে অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখবেন। জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত আলোচনায় বিশ্বের দেশগুলোর প্রাপ্তি, সম্মেলনে দাতা দেশগুলোর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন অঙ্গীকারসহ বিশ্ব নিরাপত্তা পরিস্থিতিতে খাদ্য, পানি, স্বাস্থ্য পরিবেশ, উদ্বাস্তু ও অভিবাসন বিষয় স্থান পাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী সফর নিয়ে এক সংবাদ  পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, মিউনিখ সম্মেলনের মধ্যে দিয়ে নিরাপত্তার মতো স্পর্শকাতর একটি বিষয়ে বিশ্বের শক্তিশালী দেশসমূহের অবস্থান ও দৃষ্টিভঙ্গি জানার সুযোগ তৈরি হবে। বিশ্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনা, বিশ্ব মেরুকরণের মাত্রা ও প্রবণতা সম্পর্কেও ধারণা লাভ করা যাবে।

 এই সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আমাদের অবস্থানকে আরো শক্তিশালী করবে। দেশের ভাবমূর্তি আরো উজ্জ্বল হবে বলেও  আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন,  জার্মানিভিত্তিক কোম্পানি সিমেন বাংলাদেশে বিদ্যুৎ খাতে বড় ধরনের বিনিয়োগ করার প্রস্তাব দিয়েছে। সম্মেলনে যোগদানকালে এ বিষয়ে যৌথ উন্নয়ন চুক্তি ( জেডিএ) সই হতে পারে।

ড.  মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৭-১৯ ফেব্রুয়ারি সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করবেন। ১৭ ফেব্রুয়ারি আবুধাবিতে আন্তর্জাতিক প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন তিনি।

আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি (বুধবার) প্রধানমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।