জলবায়ু ঝুঁকিতে শিশুরা

জলবায়ু ঝুঁকিতে শিশুরা

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশের এক কোটি নব্বই লাখেরও বেশি শিশু সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে। এসব শিশুর এক-চতুর্থাংশের বয়স পাঁচ বছরের কম। বন্যা ও নদী ভাঙনের মতো সমস্যার কারণে অনেক পরিবারকে শহরের বস্তিতে গিয়ে গাদাগাদি, ঠাসাঠাসি করে বসবাস করতে হচ্ছে। সেখানে নিয়মিত স্বাস্থ্যকর খাবার, শিক্ষা, পর্যাপ্ত স্বাস্থ্য সেবা, স্যানিটেশন এবং নিরাপদ খাবার পানির সংকটে থাকে তারা। এসব বস্তিতে বসবাসকারী শিশুরা অপুষ্টির ঝুঁকিতে রয়েছে। সেখানে শিশুশ্রম, বাল্য বিয়ে, সহিংসতা ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের নিপীড়নের শিকার হতে হয় শিশুদের। সম্প্রতি ইউনিসেফের দ্য স্টেট অব দ্য ওয়ার্ল্ড চিলড্রেন ২০১৯, চিলড্রেন, ফুড এ্যান্ড নিউট্রিশন, গোয়িং ওয়েল ইন এ চেঞ্জিং ওয়ার্ল্ড শিরোনামে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়। বাংলাদেশের ৬৬ শতাংশেরও বেশি মানুষ কৃষির ওপর জীবিকা নির্ভর করে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে খরা ও বন্যায় দেশটির কৃষি খাত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

তার মানে দরিদ্র পরিবারের শিশুদের না খেয়ে থাকার পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তন বাংলাদেশে শিশু পুষ্টির জন্যও হুমকি। ফলে সংশ্লিষ্টদের কর্তব্য হওয়া দরকার পরিস্থিতি আমলে নেয়া এবং সৃষ্ট পরিস্থিতি অনুধাবন করে কার্যকর পদক্ষেপ নিশ্চিত করা। সৃষ্ট পরিস্থিতির ভয়াবহতা অনুধাবন করা ও এর পরিপ্রেক্ষিতে পদক্ষেপ গ্রহণের বিকল্প থাকতে পারে না। এ বছর জলবায়ু পরিবর্তন কৌশল এবং অ্যাকশন প্লানের দ্বিতীয় পর্যায় শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। ওই পরিকল্পনায় দরিদ্রতম এবং সবচেয়ে ঝুঁকিতে থাকাদের চাহিদার ভিত্তিতে ক্ষেত্রগুলোকে গুরুত্ব দেয়া হবে। এ ছাড়া শিশু পুষ্টি, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, স্যানিটেশনের মতো বিষয়গুলো নিশ্চিতের চেষ্টা করা হবে এমনটিও জানা গেছে। সর্বোপরি আমরা বলতে চাই, জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবিলায় যথাযথ প্রস্তুতির কোনো বিকল্প নেই।