জনস্বাস্থ্যের হুমকি বায়ু দূষণ

জনস্বাস্থ্যের হুমকি বায়ু দূষণ

বাংলাদেশে হাঁপানি, সিওপিডিসহ বিভিন্ন শ্বাসকষ্ট জনিত রোগ আশংকাজনক হারে বাড়ছে। বাংলাদেশ অ্যাজমা এসোসিয়েশনের হিসাবে দেশে এখন ৮৫ লাখেরও বেশি মানুষ হাঁপানিতে আক্রান্ত। তবে বিশেষজ্ঞরা তার চেয়েও বেশি উদ্বিগ্ন সিওপিডি নিয়ে। কারণ সিওপিডি দীর্ঘ মেয়াদি রোগ এবং একবার হয়ে গেলে তা পুরোপুরি সারে না। বিশ্বে মানুষের মৃত্যুর অন্যতম কারণ ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ সিওপিডি। ১৯৯০ সালে এর অবস্থান ছিল ষষ্ঠ। তবে পরিস্থিতির এত দ্রুত অবনতি হচ্ছে যে ২০২০ সালে এর অবস্থান দাঁড়াতে পারে তৃতীয়তে। ঘাতক এই ব্যাধির অনুকূল পরিবেশ হচ্ছে দেড় কোটিরও অধিক মানুষের নগরী ঢাকা। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক দুটি গবেষণা সংস্থার এক যৌথ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বায়ু দূষণে এশিয় শহরগুলোর শীর্ষে রয়েছে ভারতের রাজধানী দিল্লি। তার পরেই বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা, পাকিস্তানের করাচি ও চীনের বেইজিংয়ের অবস্থান।

বায়ু দূষণ শুধু রাজধানীই নয়, সারা দেশের জন্য এক অভিশাপের নাম। পরিবেশ অধিদপ্তরের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, শুধু বায়ু দূষণের কারণে বাংলাদেশের ২৭ ভাগ মানুষ মারা যাচ্ছে। দেশে পরিবেশ দূষণের ক্ষেত্রে মহীরুহ হয়ে বিরাজ করছে ইটভাটা, শিল্পায়ন ও যান্ত্রিক সভ্যতার বিকাশ দূষণের ক্ষেত্র আরও বাড়িয়েছে। স্বাস্থ্য বিজ্ঞানীরা বলছেন, বায়ু দূষণের অর্থ বাতাসে ভাসমান কণা ও বিষাক্ত গ্যাসের পরিমাণ বৃদ্ধি সহনশীলতার বাইরে চলে যাওয়া। ব্যক্তি থেকে প্রতিষ্ঠান সবাই নিজ নিজ জায়গা থেকে দায়িত্ব পালন করলে, দায়ী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তি নিশ্চিত হলে ঢাকার বাতাসও হবে বিশুদ্ধ, নির্মল। জনস্বাস্থ্যের স্বার্থে বায়ু দূষণ রোধে উদ্যোগ নিতে হবে।