জনসংখ্যা যখন সম্পদ

জনসংখ্যা যখন সম্পদ

বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। জনসংখ্যা ১৬ কোটি। অনেকে বলেন, এ বিপুল পরিমাণ জনসংখ্যা আমাদের জন্য সমস্যা নয়, বরং সম্পদ। এদের দক্ষ মানব সম্পদ হিসেবে গড়ে তোলার মাধ্যমে বাংলাদেশের চেহারা পাল্টে দেওয়ার কথা বলেন তারা। আর এটা যে আকাশ-কুসুম স্বপ্ন নয়, পরিসংখ্যান থেকেই মেলে তার প্রমাণ। ১৫-৫৯ বছর বয়সীরাই এ দেশের মোট জনসংখ্যার ৫৬-৫৮ শতাংশ। বিপুল কর্মদক্ষতা রয়েছে তাদের। এ দেশের জনসংখ্যাকে ইতিবাচক হিসেবে বিবেচনার কারণ মূলত এটাই। কিন্তু প্রশ্ন হলো, এ সুবিধা কতটা কাজে লাগাতে পারছি আমরা? পারছি না। এখনো দেশে বেকার জনগোষ্ঠী কম নয়। কারণ চাহিদা অনুযায়ী কর্মসংস্থান নেই। এ কারণে বেকারত্ব।

বিপুল জনসংখ্যাকে উন্নয়ন কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করতে হলে তাদের জনসম্পদে পরিণত করতে হবে- এটা কারো অজানা কথা নয়। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রবাসী কর্মসংস্থান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে প্রত্যক্ষভাবে। প্রতি বছর বিপুল পরিমাণে রেমিট্যান্স আয় করছি আমরা। এর উৎস জনশক্তি রফতানি। মধ্যপ্রাচ্য সহ বিশ্বের অনেক দেশে রয়েছে বাংলাদেশী শ্রমিকের চাহিদা। দক্ষতা বাড়িয়ে এদের শ্রম রফতানি করা গেলে এ খাত থেকে আমাদের আয় আরো বাড়বে। সময়ের পরিবর্তনে এখন প্রয়োজন তাদের উপযুক্ত শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, পুঁজি সরবরাহ করা। দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে তাদের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত করা না গেলে দারিদ্র্যও টেকসইভাবে বিমোচন করা যাবে না।