‘ছিনতাইয়ের কবলে পড়া’ প্লেনে ছিলেন না এমপি বাদল

‘ছিনতাইয়ের কবলে পড়া’ প্লেনে ছিলেন না এমপি বাদল

জাসদের কার্যকরী সভাপতি ও সংসদ সদস্য মঈনুদ্দিন খান বলেছেন, চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তজাতিক বিমানবন্দরে ছিনতাইয়ের কবলে পড়া দুবাইগামী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে তিনি ছিলেন না।

সেই সঙ্গে এই ঘটনা সাহসিকতার সঙ্গে মোকাবেলা করায় পাইলট ও ক্রুদের পুরস্কৃত করার দাবি জানান তিনি।

সোমবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় সংসদের অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে মঈনুদ্দিন খান বাদল এ কথা জানান। এর আগে বিকেলে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে দিনে কার্যক্রম শুরু হয়।

জাসদনেতা বাদল বলেন, ‘পত্র-পত্রিকায় এসেছে আমি ওই প্লেনের যাত্রী ছিলাম। আসলে আমি বিমানের ওই ফ্লাইটের যাত্রী ছিলাম না। ভুলটা ভাঙিয়ে দিলাম।’
‘প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম গিয়েছিলেন- আমি সেখান থেকে ঢাকায় আসার জন্য বিমানবন্দরে গিয়েছিলাম। এ সময় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উ শৈ শিংও সেখানে ছিলেন। আমি সংসদ সদস্য (এমপি) হিসেবে নৈতিক কারণেই তখন টার্মাকে গিয়েছিলাম।’

তিনি বলেন, ‘পত্র-পত্রিকায় এসেছে পাইলটের সঙ্গে ছিনতাইকারীর মল্লযুদ্ধ ও গুলি হয়েছে। আসলে এসব কিছুই হয়নি। আমাদের দেশে প্রকৃত বীরদের যথাযথ সম্মানিত হয় না। পাইলট, ক্রুরা সাহসিকতার সঙ্গে এই ঘটনা মোকাবিলা করেছেন। আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলবো এদের পুরস্কৃত করা উচিত।’

‘এ ধরনের ঘটনায় বিশ্বেও অনেক দেশে বিমানবন্দর দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকে। আমরা মাত্র ২ ঘণ্টা ৩২ মিনিটে বিমানবন্দর খুলে দিতে পেরেছি। এতে আমাদের পারদর্শিতা প্রমাণ হয়েছে। তাদের পুরস্কৃত করা উচিত।’