ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের ব্রিফিংয়ে পদপ্রাপ্তদের হামলা

ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের ব্রিফিংয়ে পদপ্রাপ্তদের হামলা

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা ঘিরে পদবঞ্চিতদের সংবাদ সম্মেলনে হামলা করেছেন পদপ্রাপ্তরা। এতে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন, তাদের মধ্যে কয়েকজন অনেক বেশি রক্তাক্ত হয়েছেন।

সোমবার (১৩ মে) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেলে ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হলে গত কমিটির পদে থাকা নেতারাসহ ছাত্রলীগের ৩০-৫০ জন নেতাকর্মী বিক্ষোভ মিছিল করেন। সন্ধ্যার পর তারা মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করতে গেলে বর্তমান কমিটিতে পদপ্রাপ্তরা মুখোমুখি অবস্থান নেয়। পদপ্রাপ্তরা ‘সিন্ডিকেট ভুয়া’ বলে স্লোগান দিতে থাকে।

এক পর্যায়ে সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়। তখন পদপ্রাপ্তদের পক্ষে একজন ব্যনার ছিঁড়ে চলে যেতে চাইলে বাধা দেয় পদবঞ্চিতরা। এতে দুইপক্ষ হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। এসময় চেয়ার ছোড়াছুড়ি হলে ছাত্রলীগের সাবেক উপ-অর্থ সম্পাদক ও ডাকসুর সদস্য তিলোত্তমা শিকদার, ডাকসুর ক্রীড়া সম্পাদক তানভীর ভুঁইয়া শাকিল, ডাকসুর সদস্য ও কুয়েত মৈত্রী হল ছাত্রলীগের সভাপতি ফরিদা পারভীন, সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী শায়লা, ডাকসুর কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক ও রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সভাপতি বিএম লিপি আক্তার আহত হন। চেয়ারের আঘাতে রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী দিশার মাথা ফেটে যায়। পরে আহতাবস্থায় তাদের ঢামেকে নিয়ে যাওয়া হয়।

দফায় দফায় চেয়ার ছোড়ার পর পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা মধুর ক্যান্টিন ত্যাগে বাধ্য হয়। নতুন পদপ্রাপ্তরা স্লোগান দিযে মধুর ক্যান্টিনে অবস্থান নেন।

পদবঞ্চিতদের অভিযোগ, নতুন কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আরিফুজ্জামান আল ইমরানের নেতৃত্বে তাদের ওপর হামলা করা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে আরিফুজ্জামান আল ইমরান  বলেন, বিকেলের ঘটনার সময় আমি ছিলাম না। যখন গিয়েছি তখন হাতাহাতি শেষ। সন্ধ্যায় পদবঞ্চিতরা সংবাদ সম্মেলনে করছিল, তখন আমরা পলিটিক্যাল চেয়ারে বসে ছিলাম। তখন দুই পক্ষই পাল্টাপাল্টি স্লোগান দেয়। অতি উৎসাহী জুনিয়ররা ব্যানার ছিঁড়তে গিয়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। আমরা সিনিয়ররা গিয়ে থামানোর চেষ্টা করি। এ অভিযোগ ভিত্তিহীন।