চূড়ান্তভাবে নিষিদ্ধ হলো রেনিটিডিন

চূড়ান্তভাবে নিষিদ্ধ হলো রেনিটিডিন

মানবদেহে ক্যানসার উৎপাদনকারী উপাদানের আধিক্য পাওয়ায় ভারতের মেসার্স সারাকা ও মেসার্স এসএমএস লাইফসায়েন্স নামে দু’টি কোম্পানি থেকে আমদানি করা রেনিটিডিনের কাঁচামাল দিয়ে তৈরি রেনিটিডিন জাতীয় ওষুধ উৎপাদন, বিক্রি, বিতরণ ও রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করলো ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান স্বাক্ষরিত এক গণবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে চলতি বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর বিশ্ববাজারে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে রেনিটিডিন নিষিদ্ধ করা হলে বাংলাদেশেও এর উৎপাদন ও বিপণন নিষিদ্ধ করা হয়। এরপর ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের ব্যবস্থাপনায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে চূড়ান্তভাবে এ ওষুধের উৎপাদন, বিক্রয়, বিতরণ ও রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলো।

গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ভারতের মেসার্স সারাকা ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড ও এসএমএস লাইফসায়েন্স থেকে আমদানি করা রেনিটিডিন হাইড্রোক্লোরাইড কাঁচামাল এবং এই কাঁচামাল থেকে উৎপাদিত ফিনিস প্রোডাক্টের নমুনা ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের ব্যবস্থাপনায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অ্যাক্রিডিটেড ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা ও বিশ্লেষণ করা হয়।

পরীক্ষার ফলাফলে কাঁচামাল ও ফিনিশ প্রোডাক্টে এমডিএমএ ইনপিউরিটি প্রয়োজনের তুলনায় অনেক অতিরিক্ত পরিমাণে পাওয়া গেছে। যা জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

এই পরিপ্রেক্ষিতে জনস্বার্থে দেশের সব রেনিটিডিনজাতীয় ওষুধ উৎপাদন, বিক্রয়, বিতরণ ও রপ্তানি স্থগিত করা হলো।