চীনে নতুন ভাইরাসে মৃত্যু ১৭, গণপরিবহন-দূরপাল্লার বাস বন্ধ

চীনে নতুন ভাইরাসে মৃত্যু ১৭, গণপরিবহন-দূরপাল্লার বাস বন্ধ

চীনে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে করোনা ভাইরাস।

চীনে দ্রুত ছড়িয়ে যাওয়া নতুন ‘করোনা ভাইরাস’-এ ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ৫৭১ জন। এ কারণে চীনের উহান থেকে প্লেনের বহু ফ্লাইট বাতিল, ট্রেন চলাচল এবং গণ পরিবহন বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। দেশটিতে ছড়িয়ে পড়া ভাইরাসটির মূল ‘যুদ্ধক্ষেত্র’ ভাবা হচ্ছে শহরটিকে।


বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম এ তথ্য জানায়।

কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) শহর থেকে বাইরের প্লেনের ফ্লাইট বাতিল ঘোষণা করেছে। একইসঙ্গে সাময়িকভাবে যাত্রা বাতিল করেছে ট্রেনের। এর পাশাপাশি গণ পরিবহন, সাবওয়ে ও দূরপাল্লার বাস পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

এক বিবৃতিতে বলা হয়, বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া উহানের কোনো বাসিন্দা শহরের বাইরে যেতে পারবেন না।

বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া চীনের উহান থেকে বের হতে পারবেন না সেখানকার বাসিন্দারা।
গত বছর চীনের উহান শহরে প্রথম ভাইরাসটির অস্তিত্ব শনাক্ত করা হয়। শহরটিতে এক কোটি ১০ লাখ মানুষের বসবাস।

আরও পড়ুন>> মানুষের মাধ্যমে ছড়াচ্ছে চীনের নতুন ভাইরাস

অন্যদিকে থাইল্যান্ডে দুইজন, দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানে একজন করে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর জানানো হয়েছে। আক্রান্তরা সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন।

বিশ্বব্যাপী ‘নজরে’ আসা ভাইরাসটি ঠেকাতে এরইমধ্যে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছে বিভিন্ন দেশের বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। সিঙ্গাপুর, হংকং এবং জাপানের রাজধানী টোকিওর বিমানবন্দরে উহানের সব ফ্লাইটের যাত্রীদের স্ক্রিনিং (পরীক্ষা) করানো হচ্ছে। একই প্রক্রিয়ায় যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের স্যান ফ্রান্সিককো, লস অ্যাঞ্জেলেস ও নিউ ইয়র্ক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন>> চীনের নতুন ভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা

এ ভাইরাসটি মানুষ ও প্রাণীর ফুসফুসে সংক্রমণ করতে পারে। ভাইরাসজনিত ঠাণ্ডা বা ফ্লু’র মতো হাঁচি-কাশির মাধ্যমে এটি ছড়িয়ে পড়ে। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হলে যে লক্ষণগুলো দেখা দেয় তা হলো- শ্বাসকষ্ট, জ্বর, কাশি, নিউমোনিয়া ইত্যাদি। শরীরের এক বা একাধিক অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ নিষ্ক্রিয় হয়ে আক্রান্ত ব্যক্তির মৃত্যু হতে পারে।