চীনে তদন্তাধীন ইন্টারপোল প্রধানের ‘পদত্যাগ’

চীনে তদন্তাধীন ইন্টারপোল প্রধানের ‘পদত্যাগ’

এবার নাটকীয়ভাবে ‘পদত্যাগ’র ঘোষণা এসেছে ফ্রান্সভিত্তিক আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোলের (ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল পুলিশ অর্গানাইজেশন) পরিচালক মেং হংওয়েইর।  চীনে গিয়ে বেশ ক’দিন নিখোঁজ থাকার পর সেখানকার তদন্তকারী সংস্থার হাতে তার ‘আটক’ থাকার খবর ছড়িয়ে পড়তেই খোদ ইন্টারপোলই এ তথ্য দিলো।

ইন্টারপোলের সদরদপ্তর থেকে রোববার (৭ অক্টোবর) বিবৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, মেং হংওয়েই’র কাছ থেকে সংস্থাপ্রধানের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর পত্র হাতে পেয়েছে কর্তৃপক্ষ। এই পত্র গ্রহণও করা হয়েছে এবং অবিলম্বেই তা কার্যকর হয়েছে। ইন্টারপোলের শীর্ষ কর্মকর্তা কিম জং ইয়ংকে এই সংস্থার ভারপ্রাপ্ত প্রধানের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

অক্টোবরের শুরুতে সংবাদমাধ্যম জানায়, ২৫ সেপ্টেম্বর ফ্রান্সের লিওন শহরের ইন্টারপোল সদরদপ্তর থেকে বের হয়ে চীনে রওনা হওয়ার পর থেকেই ‘নিখোঁজ’ হন মেং।

৬৪ বছর বয়সী মেং চীনের নাগরিক হলেও তার স্ত্রী ফ্রান্সের লিওন শহরেই থাকেন। মেংয়ের স্ত্রী ফরাসি পুলিশের কাছে এ বিষয়ে রিপোর্ট করলে তারা ঘটনার তদন্তে নামে।

প্রাথমিকভাবে ইন্টারপোল ও চীন এ বিষয়ে কিছু না বললেও শনিবার (৬ অক্টোবর) হংকংভিত্তিক সংবাদমাধ্যম সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, তদন্ত সংশ্লিষ্ট কাজে জিজ্ঞাসাবাদ করতে মেংকে চীনে ‘আটক’ করা হয়েছে।

এ প্রতিবেদন প্রকাশের পর আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোল চীনকে স্পষ্ট বক্তব্য দেওয়ার আহ্বান জানায়। তখন বেইজিং জানায়, আইনভঙ্গের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন মেংয়ের বিরুদ্ধে তদন্ত করছে এবং সেজন্য তাকে আটক করেছে।

ইন্টারপোলের ৯৫ বছরের ইতিহাসে প্রথম কোনো চীনা নাগরিক হিসেবে পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছিলেন মেং। ২০১৬ সালের নভেম্বরে চার বছর মেয়াদে তাকে এ পদে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির রাজনীতিতে ৪৫ বছর ধরে জড়িত মেং স্বদেশের জননিরাপত্তা বিষয়ক উপমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে, এই মন্ত্রণালয়ের কোনো কাজেই ঝামেলায় পড়েছেন মেং।