চলে গেলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ

চলে গেলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ

অভি মঈনুদ্দীন ঃ দেশের নাট্যাঙ্গনের জনপ্রিয় অভিনেত্রী ইন্তেকাল করেছেন..ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নাইলাইহে রাজেউন। মঙ্গলবার বিকেল চারটায় রাজধানীর উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৪৪ । মঙ্গলবার সকাল ১০টায় হঠাৎ উত্তরাস্থ তার বাসায় অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। সেখানে তখন মেকাপ আর্টিস্ট মিহির ছিলেন। তাজিনের নির্দেশনা মোতাবেক তখন তাজিনকে নিয়ে উত্তরার সিনসিন জাপান হাসপাতালে নেয়া হয়। কিন্তু সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে দ্রুত দুপুর ২.৩০ মিনিটে রিজেন্ট হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে আইসিউইউতে ডা. নূরের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা চললেও শেষ পর্যন্ত তাকে আর বাঁচানো সম্ভব হয়নি।

ডা. জানান হার্টঅ্যাটাকে তার মৃত্যু হয়েছে। তাজিন আহমেদ’র হঠাৎ প্রয়াণে শিল্পীরা যে যেখানে ছিলেন বিকেল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে হাসপাতালে ভীড় করেন। শর্মিলী আহমেদ, শহীদুজ্জামান সেলিম, ওমরসানী, রিয়াজ, সাদিয়া ইসলাম মৌ, তানভীন সুইটি, বিজরী বরকতউল্যাহ, তারিন, ঈশিতা, জাকিয়া বারী মম, জেনি, আনিসুর রহমান মিলন, রওনক হাসান, ইন্তেখাব দিনার, হোমায়রা হিমু, দীপা, ¯িœগ্ধা শ্রাবণ, শাহরিয়ার নাজিম জয়, ফারুক আহমেদ, তাহমিনা সুলতানা মৌ’সহ নির্মাতা সৈয়দ শাকিল, সকাল আহমেদ’সহ আরো অনেকেই তাজিন আহমেদকে শেষ এক নজর দেখতে হাসপাতালে দ্রুত উপস্থিত হন। তাজিন আহমেদ’র ফুফু জনপ্রিয় অভিনেত্রী দিলারা জামান সন্ধ্যা নাগাদ হাসপাতালে পৌঁছান। তাজিন আহমেদ’র মা কাশিমপুর কারাগারে আছেন। মায়ের সঙ্গে কথা বলে তাজিন আহমেদকে কোথায় দাফন করা হবে তার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তাজিন আহমেদ’র জন্ম ১৯৭৩ সালে। অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি সাংবাদিকতায়ও বেশ সক্রিয় ছিলেন। ১৯৯৬ সালে বিটিভিতে প্রচারিত ‘শেষ দেখা শেষ নয়’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তাজিন আহমেদের অভিয় যাত্রা শুরু হয়েছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে পড়াশোনা করেছেন তাজিন আহমেদ।