চট্টগ্রামে মেট্রোরেলের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের নির্দেশ

চট্টগ্রামে মেট্রোরেলের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের নির্দেশ

চট্টগ্রামে মেট্রোরেল চালু করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা জানান।
 
প্রধানমন্ত্রী জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান ওবায়দুল কাদের।
 
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাকে নির্দেশ দিয়েছেন- চট্টগ্রামে মেট্রোরেলের (এমআরটি লাইন) প্রকল্পের ফিজিবিলিটি স্ট্যাডি (সম্ভাব্যতা যাচাই) শুরু করার জন্য। তার নির্দেশ অনুযায়ী আমি মন্ত্রণালয়ের সচিব ও মেট্রোরেলের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বলেছি অবিলম্বে ফিজিবিলিটি স্ট্যাডি শুরু করতে হবে, বন্দরনগরী চট্টগ্রামের জন্য এটা একটা নতুন খবর।
 
ওবায়দুল কাদের আরও জানান, ঢাকা সিটির সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে যানজট। এটা বড় দুর্বভাবনারও বিষয়। মেট্রোরেলে এমআরটি লাইন-৬ এর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে চলে এসেছে। এমআরটি লাইন-৫ ও এমআরটি লাইন-১ এর ফিজিবিলিটি শেষ হয়েছে। এ দু’টি প্রকল্পে ৯১ হাজার কোটি টাকার বেশির ভাগই জাপানের জাইকা ফান্ডের।

এমআরটি লাইন-৫ এ সাড়ে ১৬ কিলোমিটার আন্ডার গ্রাউন্ড রেল থাকবে। আর এমআরটি লাইন-১ এ সাড়ে ১৩ কিলোমিটার আন্ডার গ্রাউন্ড সুবিধা থাকবে। খুব শিগিগিরই আমরা এ দু’টির ফিজিক্যাল ওয়ার্ক শুরু করতে যাচ্ছি। টাকা বরাদ্দ ও অনুমোদন হয়ে গেছে, কাজে নির্মাণ কাজ শুরু করতে আর বেশি দেরি হবে না; আমরা এ ব্যাপারে প্রস্তুতি নিচ্ছি।

চট্টগ্রামে মেট্রোরেল চালু করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা জানান।
 
প্রধানমন্ত্রী জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান ওবায়দুল কাদের।
 
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাকে নির্দেশ দিয়েছেন- চট্টগ্রামে মেট্রোরেলের (এমআরটি লাইন) প্রকল্পের ফিজিবিলিটি স্ট্যাডি (সম্ভাব্যতা যাচাই) শুরু করার জন্য। তার নির্দেশ অনুযায়ী আমি মন্ত্রণালয়ের সচিব ও মেট্রোরেলের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বলেছি অবিলম্বে ফিজিবিলিটি স্ট্যাডি শুরু করতে হবে, বন্দরনগরী চট্টগ্রামের জন্য এটা একটা নতুন খবর।
 
ওবায়দুল কাদের আরও জানান, ঢাকা সিটির সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে যানজট। এটা বড় দুর্বভাবনারও বিষয়। মেট্রোরেলে এমআরটি লাইন-৬ এর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে চলে এসেছে। এমআরটি লাইন-৫ ও এমআরটি লাইন-১ এর ফিজিবিলিটি শেষ হয়েছে। এ দু’টি প্রকল্পে ৯১ হাজার কোটি টাকার বেশির ভাগই জাপানের জাইকা ফান্ডের।

এমআরটি লাইন-৫ এ সাড়ে ১৬ কিলোমিটার আন্ডার গ্রাউন্ড রেল থাকবে। আর এমআরটি লাইন-১ এ সাড়ে ১৩ কিলোমিটার আন্ডার গ্রাউন্ড সুবিধা থাকবে। খুব শিগিগিরই আমরা এ দু’টির ফিজিক্যাল ওয়ার্ক শুরু করতে যাচ্ছি। টাকা বরাদ্দ ও অনুমোদন হয়ে গেছে, কাজে নির্মাণ কাজ শুরু করতে আর বেশি দেরি হবে না; আমরা এ ব্যাপারে প্রস্তুতি নিচ্ছি।