চট্টগ্রামে প্রথম ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু

চট্টগ্রামে প্রথম ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রামে এই প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যু হয়েছে। সারাদেশে ডেঙ্গুতে অনেকের মৃত্যু হলেও আজকের আগ পর্যন্ত চট্টগ্রামে সে সংখ্যা ছিল শূন্য।

শনিবার (৩১ আগস্ট) ভোর ৫টার দিকে চট্টগ্রামের কাতালগঞ্জ পার্কভিউ হাসপাতালে বাদশা মোল্লা (৫৫) নামে এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়।

বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. নুরুল হায়দার।

তিনি বলেন, ‘বাদশা মোল্লা সীতাকুণ্ড উপজেলার সলিমপুরের বাসিন্দা। চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ভোরে নগরের পার্ক ভিউ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।’

গত ২২ আগস্ট বাদশা মোল্লাকে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তিনি ডেঙ্গুসহ একাধিক রোগে ভুগছিলেন।

গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত চট্টগ্রামে সরকারিভাবে ১ হাজার ১১১ জন ডেঙ্গু রোগীর সন্ধান মিলেছে।

সরকারি হিসাবে চলতি বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে ৫২ জন মারা গেছেন। তাদের মধ্যে এপ্রিলে ২, জুনে ৫, জুলাইয়ে ২৮ ও চলতি আগস্ট মাসে ১৭ জন মারা গেছেন। বেসরকারি হিসাবে এ সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ।

এদিকে রাজধানীসহ সারাদেশে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ক্রমেই কমছে। গত ২৪ ঘণ্টায় পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টার চেয়ে সারাদেশে ২৬৫ জন কম ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন)।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুমের সহকারী পরিচালক ডাক্তার আয়েশা আক্তার জানান, রাজধানীর ৪১টি সরকারি-বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত হাসপাতাল এবং বিভিন্ন বিভাগীয় হাসপাতালে শুক্রবার (৩০ আগস্ট) সকাল ৮টা থেকে শনিবার (৩১ আগস্ট) সকাল ৮টা পর্যন্ত ৭৬০ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন।

তাদের মধ্যে রাজধানী ঢাকার হাসপাতালে ৩৪৯ জন ও ঢাকার বাইরের হাসপাতলে ৪১১ জন ভর্তি হন। পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশের হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ছিল ১ হাজার ২৫ জন। তাদের মধ্যে ঢাকায় ৪৬৫ জন এবং ঢাকার বাইরে ৫৬০ জন ভর্তি হন।

পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, গত ২৩ আগস্ট সারাদেশে হাসপাতালে ভর্তি ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৪৪৬ জন। সে তুলনায় এক সপ্তাহের ব্যবধানে ডেঙ্গু ভর্তি রোগীর সংখ্যা প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। বর্তমানে রাজধানী ঢাকার চেয়ে ঢাকার বাইরে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেশি।