চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র মেনে নিল বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা

চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র মেনে নিল বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা

চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টে পঞ্চম দিনের শেষ সেশনে ড্র মেনে নিল দুই দলের অধিনায়ক। যেখানে দ্বিতীয় ইনিংসে দলীয় ৩০৭ রান করে ১০৭ রানের লিড পেয়েছিল টাইগাররা। এর আগে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে ৫১৩ রানের জবাবে ৯ উইকেট হারিয়ে ৭১৩ রানে ইনিংস ঘোষণা করেছিল লঙ্কানরা। পুরো টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে প্রায় একাই লড়াই করে মাইফলক গড়া মুমিনুল হক ম্যাচ সেরার পুরস্কার পান।

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংসে ১০০ ওভার খেলে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩০৭ রান করে। ব্যাটিংয়ে অপরাজিত ছিলেন এই টেস্টে নেতৃত্ব দেওয়া মাহমুদউল্লা (২৮) ও মোসাদ্দেক হোসেন (৮)।

এর আগে প্রথম ইনিংসে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি (১৭৬) করা মুমিনুল হক দ্বিতীয় ইনিংসেও স্বাগতিকদের ভরসা দিয়ে যান। করেছেন ব্যাক-টু-ব্যাক সেঞ্চুরি। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে টেস্টের দুই ইনিংসে সেঞ্চুরির বিরল রেকর্ড গড়লেন তিনি। এই টেস্টে ক্যারিয়ারের পঞ্চম ও ষষ্ঠ সেঞ্চুরি করলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ১৭৪ বলে ৫টি চার ও ২টি ছক্কায় ১০৫ রান করে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার বলে আউট হন তিনি। চতুর্থ উইকেট জুটিতে তিনি লিটন দাশের সঙ্গে ১৮০ রানের পার্টনারশিপ গড়েছিলেন।

মুমিনুল হকের সঙ্গে দারুণ জুটি গড়া লিটন দাশ ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরির দিকে এগুচ্ছিলেন। তবে ব্যক্তিগত ৯৪ রানের সময় রঙ্গনা হেরাথের বলে উঠিয়ে মারলেন। হয়তো ইচ্ছে ছিল ছক্কা হাঁকিয়েই সেঞ্চুরি উদযাপন করবেন। কিন্তু হলো না। পেরেরার ক্যাচ হয়ে ফিরে যান তিনি। ১৮২ বলে ১১টি চারে নিজের ইনিংস সাজান তিনি।

খেলার পঞ্চম দিন ১১৯ রানে পিছিয়ে থেকে মাঠে নামে বাংলাদেশ। যেখানে চতুর্থ দিন ৮১ রানে টডঅর্ডারের তিন উইকেট হারিয়েছিল স্বাগতিকরা। বাজে শট খেলে আউট হন তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস ও মুশফিকুর রহিম।

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে সবকটি উইকেট হারিয়ে ৫১৩ করে। বীরোচিত সেঞ্চুরি করেছিলেন মুমিনুল হক । জবাবে চতুর্থ দিন ৯ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কা কুশাল মেন্ডিস (১৯৬), ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা (১৭৩) ও রোশেন সিলভার (১০৯) সেঞ্চুরিতে ৭১৩ রানের নিজেদের প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে। যেখানে ২০০ রানের লিড পায় সফরকারীরা।