গোপালগঞ্জের দিলারা তিনি...

গোপালগঞ্জের দিলারা তিনি...

 মনতাজুর রহমান আকবরের একটি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে চলচ্চিত্রে অভিনয়ে ফিরেছেন চিত্রনায়িকা দিলারা। নায়িকা হিসেবে এদেশের সিনেমা হলের পর্দা কাঁপিয়েছেন তিনি। মাঝে সংসার জীবন নিয়ে এতোটাই ব্যস্ত হয়ে উঠেছিলেন তিনি যে চলচ্চিত্রে অভিনয় থেকে দূরে থাকতে হয়। কিন্তু নানান সময়ে সুখ-দুঃখের সঙ্গী সেই চলচ্চিত্রের মানুষদের পাশে এসেছেন, পাশে থেকেছেন। জীবনের প্রয়োজনে দিলারা চলচ্চিত্রে অভিনয় থেকে দূরে থাকরেও চলচ্চিত্রের উন্নয়নের জন্যে নানান কারণে চলচ্চিত্রের মানুষের পাশে থেকেছেন। একজন চলচ্চিত্রে প্রেমীরতো এমনই হওয়া উচিৎ, যেমনটি দিলারা। গোপালগঞ্জে কোন এক সালের ২৭ জানুয়ারি জন্ম নেয়া দিলারার পুরো নাম দিলারা ইয়াসমিন। তার ডাক নাম দোলন। পরিবারের অনেকেই এখনো দোলন নামেই ডাকে। কিন্তু তার দ্বিতীয় পরিবার অর্থাৎ চলচ্চিত্রের মানুষ’জন আর সারা বাংলার দর্শক তাকে দিলারা নামেই ডাকেন। দুটো নামের প্রতি তার দুই রকমের মায়া কাজ করে। তাই একটি নাম যেন অন্যটির পরিপূরক ঠিক মেযন সংসার আর চলচ্চিত্র জীবনের মতো।

দিলারা এখনো বিশ্বাস করেন যে তিনি অভিনয় শিখছেন। দিলারা বলেন,‘ অভিনয় করতে করতে অনেকেই নির্মাতা হয়ে উঠেন। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি আমি এখনো অভিনয় শিখছি। তাই অভিনয়টাই শিখে যেতে চাই আজীবন। নির্মাতা হিসেবে স্বপ্ন দেখারও সাহস করতে পারিনা।’ দিলারার বাবা মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মা মাহফুজা হোসেন। তারা তিন বোন চার ভাই।  প্রায় দুই দশক আগে চলচ্চিত্রের এক সময়ের সাড়া জাড়ানো নায়িকা দিলারা অভিনীত চলচ্চিত্র মুক্তি পায়। এরপর দিলারাকে আর নতুন কোন চলচ্চিত্রে অভিনয়ে দেখা যায়নি। প্রায় দুই দশক অর্থাৎ বিশ বছর পর দিলারাকে আবারো নতুন একটি চলচ্চিত্রে অভিনয়ে দেখা যাবে। মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত ‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। এতে তিনি আহমেদ শরীফের স্ত্রী, চিত্রনায়ক বাপ্পী সাহা’র মা আমেনা চরিত্রে অভিনয় করেছেন। এরইমধ্যে দিলারা তার অংশের শুটিং সম্পন্ন করেছেন বলে জানান। দিলারা বলেন, ‘বহুবছর পর চলচ্চিত্রে অভিনয় করে সত্যিই ভীষণ ভালোলেগেছে। মাঝে দেখতে দেখতে প্রায় বিশ বছর পেরিয়েগেছে। সত্যি বলতে কী আমার একমাত্র মেয়ে রাকা’র জন্যই এতোদিন চলচ্চিত্রে অভিনয় থেকে দূরে ছিলাম। এখন রাকা বড় হয়েছে, তারও এক কন্যা সন্তান আছে। নাম রিভা। সবমিলিয়ে আমি এখন বেশ ভালো আছি, অবসরও আছে। তবে চলচ্চিত্রে অভিনয়ে নিয়মিত হবো কী তা এখনই বলতে পারছিনা। ভালো গল্প, ভালো চরিত্রে কাজ করার সুযোগ পেলে অবশ্যই করবো। ’ দিলারা অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র ছিলো এম এ কাশেম পরিচালিত ‘রঙ্গিন বাহরাম বাদশাহ্’। এতে তিনি ও দিতি অভিনয় করেছিলেন বলেও স্মৃতিচারণ করেন দিলারা। মঞ্চ নাটকে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে মিডিয়ার সাথে দিলারার সম্পৃক্ততা ঘটে।

 রফিকুল বারী চৌধুরীর নির্দেশনায় তিনি প্রথম ‘মুসলিম শাড়ি’র বিজ্ঞাপনে মডেল হন। এই বিজ্ঞাপনে কাজ করার পরপরই আমজাদ হোসেনের নির্দেশনায় ‘সুন্দরী’ চলচ্চিত্রে প্রথম অভিনয় করেন। এফ কবির চৌধুরী পরিচালিত ‘সওদাগর’ চলচ্চিত্রে নায়িকা হিসেবে অভিনয় করে তিনি আলোচনায় আসেন। এরপর তিনি ‘শেষ উত্তর’, ‘তিন বাহাদুর’, ‘এখনই সময়’, ‘নাজমা’, ‘কালো গোলাপ’, ‘অসতী’, ‘স¤্রাট’, ‘আওলাদ’, ‘নাদিরা’, ‘রাজভিখারী’, ‘পদ্মগোখরা’, ‘হাইজ্যাক’, ‘আশা নিরাশা’, ‘রক্তের বন্দী’সহ প্রায় একশো চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। তার একমাত্র আলোচিত কমার্শিয়াল মঞ্চ নাটক ‘নবাব সিরাজউদ্দৌলা’। এতে তিনি লুৎফা চরিত্রে অভিনয় করতেন। এই নাটকে অভিনয়ের জন্য তিনি অষ্ট্রেলিয়াও সফর করেছিলেন। দিলারা প্রযোজিত চলচ্চিত্র হচ্ছে কামরুজ্জামান পরিচালিত ‘রসিয়া বন্ধু’ এবং খসরু নোমান পরিচালিত ‘সাজা’। দুটোতেই তার বিপরীতে নায়ক ছিলেন প্রবীরমিত্র। রাজধানীর মহাখালী’র ‘আদর্শ বালিকা বিদ্যালয়’-এ অষ্টম শ্রেণীতে পড়ার সময় একটি নাচের অনুষ্ঠানে রফিকুল বারী চৌধুরী তাকে নিয়ে বিজ্ঞাপন নির্মাণের আগ্রহ প্রকাশ করেন। ছোটবেলা থেকেই দিলারা নাচে এবং গানে বেশ পারদর্শী ছিলেন। দিলারা ‘বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট’র সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট। চলচ্চিত্রের বর্তমান অবস্থা নিয়ে দিলারা বলেন,‘ একের পর এক ভালো ভালো চলচ্চিত্র নির্মিত হচ্ছে সত্যি। কিন্তু ব্যবসা সফল হচ্ছে না। আমি বিশ্বাস করি চলচ্চিত্রে সুদিন ফিরে আসবে। আবার আমাদের সিনেমা হল দর্শক সমাগমে উৎসব মুখরিত হয়ে উঠবে।’ ছবি : মোহসীন আহমেদ কাওছার।