গৃহহীনকে ঘর করে দিতে হবে: নেতাকর্মীদের প্রধানমন্ত্রী

গৃহহীনকে ঘর করে দিতে হবে: নেতাকর্মীদের প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের কোন মানুষ যেন গৃহহীন না থাকে সেজন্য দলীয় নেতাকর্মীদের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শনিবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দলীয় আলোচনা সভায় এই প্রত্যাশা জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “আমাদের আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী যে যেখানে আছেন, যে যার মতো পারেন সহযোগিতা করবেন বাংলাদেশের একটা মানুষও যেন গৃহহারা বা গৃহহীন না থাকে। প্রতিটি গ্রামে গ্রামে খোঁজ নিতে বলেছি নদীভাঙনে যারা ঘরবাড়ি হারিয়েছে, তাদেরকে আমরা ঘর করে দেব, আর যারা ভূমিহীন, গৃহহীন তাদেরকেও আমরা ঘর তৈরি করে দেব।

“প্রত্যেকটা মানুষের একটা ঠিকানা হবে।”

গত ১১ বছর ধরে রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, “আমরা চিকিৎসার ব্যবস্থা, শিক্ষার ব্যবস্থা করেছি। আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি। আমরা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি।

“শুধুমাত্র অর্থনৈতিকভাবে না, আমরা প্রযুক্তি শিক্ষাকেও গুরুত্ব দিয়েছি। সারা বাংলাদেশে আজকে আমরা প্রযুক্তির ব্যবহার, ইন্টারনেট সার্ভিস দেওয়া থেকে শুরু করে মোবাইল ফোন সব কিছু আমরা ব্যবহার করার সুযোগ করে দিয়েছি।”

শেখ হাসিনা বলেন, “আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে। এই ত্যাগ কখনও বৃথা যায় না। আত্মত্যাগ বৃথা যায় না। বৃথা যেতে আমরা দেব না। এটাই আমাদের প্রতিজ্ঞা। এই প্রতিজ্ঞা নিয়ে জাতির পিতার স্বপ্নের ‘সোনার বাংলাদেশ’ গড়ে তুলব। ‘মুজিববর্ষ’ সফল-স্বার্থকভাবে আমরা উদযাপন করব।”

আওয়ামী লীগ আমলে বাংলাদেশের অগ্রগতির কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “দীর্ঘ এক দশকে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। সারা বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ মর্যাদা পেয়েছে। এখন উন্নয়নের ‘রোল মডেল’ হিসেবে আমাদের ঘোষণা দেওয়া হচ্ছে, যেখানে এক সময় সবাই অবহেলার চোখে দেখত।”