গুরুদাপুরে পুকুরে বিষ প্রয়োগে ৫০ লাখ টাকার মাছ নিধন

গুরুদাপুরে পুকুরে বিষ প্রয়োগে ৫০ লাখ টাকার মাছ নিধন

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি : গুরুদাসপুর উপজেলার তালবাড়িয়ায় আলতাব প্রামাণিকের পুকুরে শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিষ প্রয়োগে পুকুরের প্রায় ৫০লাখ টাকার মাছ নিধনের অভিযোগ উঠেছে।  বিষয়টি আলতাব গুরুদাসপুর থানায় মৌখিকভাবে জানিয়েছেন।মাছচাষী আলতাব প্রামাণিক অভিযোগ করেন- তিনি পাশাপাশি ১০ বিঘার দুটি পুকুরে মাছ করছেন। এক বছর আগে ১৫লাখ টাকা ব্যয়ে পুকুর দুটিতে রুই,কাতলা,মৃগেল, ছিলভারসহ প্রায় ১০ প্রজাতির মাছ চাষ শুরু করেন। অভিযুক্ত আলমামুন ও গোলাপ মহুরী তার আপন ভাই। পুকুরে আলমামুন ও গোলাপ মহুরীর দুই বিঘা জমি থাকায় বছর ভিত্তিক ৭০ হাজার টাকায় লিজ নিয়েছেন তিনি। কিন্তু টাকা পরিশোধ করতে দেরি হওয়ায় বিষ প্রয়োগে তার ৫০ লাখ টাকার মাছ নিধন করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী খোদাবক্স ও আখতার বানু বলেন- শুক্রবার দুপুরে নামাজ পড়তে যাওয়ার সুযোগে আলমামুন, গোলাপ মহুরী ও তাদের দুই সন্তান শাকিল,শান্তকে তারা পুকুরে বিষ ছিটাতে দেখেন। এখন ক্রমেই মাছগুলো ভেসে উঠছে। ধারাবারিষা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।অভিযুক্তদের পক্ষে গোলাপ মহুরী পুকুরে বিষ প্রয়োগের কথা স্বীকার করে বলেন- ওই পুকুরে আমাদের জমি রয়েছে। এনিয়ে থানায় সালিশ হওয়ার পর আলতাব পুকুর থেকে তার চাষের মাছ বিক্রি করেছেন। এখন পুকুরে যে মাছ আছে তা বর্ষাকালিন মাছ। এই মাছ অপসারণ করে আমরা মাছ চাষ করবো। একারণে পুকুরে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে। গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোজাহারুল ইসলাম বলেন- পুকুরে বিষ প্রয়োগের বিষয়ে তিনি মৌখিকভাবে শুনেছেন। তবে কেউ লিখিত অভিযোগ দেননি।