গাজীপুর ও খুলনা সিটি নির্বাচন সেনা চাইলেও ইভিএমে আপত্তি বিএনপির

গাজীপুর ও খুলনা সিটি নির্বাচন সেনা চাইলেও ইভিএমে আপত্তি বিএনপির

আগামী ১৫ মে অনুষ্ঠিতব্য গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে লেবেল প্লেয়িং ফিল্ড বলে কিছু নেই বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ ভোট নিশ্চিতে দুই সিটিতে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছে দলটি। তবে সেখানে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) যাতে ব্যবহার করা না হয় সেই দাবিও তুলেছে তারা।

রোববার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই দাবি জানান। বিএনপির এই নেতা বলেন, দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বলে কিছু নেই। আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা সশস্ত্র মহড়া দিচ্ছে। ক্ষমতাসীন দল ও সন্ত্রাসীদের হাতে বৈধ ও অবৈধ অস্ত্রের ছড়াছড়ি। সরকার দলীয় নেতা-কর্মীরা মিছিল করছে, মিটিং করছে, সমাবেশ করছে বীরদর্পে। অন্যদিকে বিএনপিকে সভা-সমাবেশ দূরের কথা নেতা-কর্মীরা কেউই বাড়িতে রাতে ঘুমাতে পারছে না।

তাদের জীবন কাটছে হয় জেলখানায় না হয় আদালতের বারান্দায়। রিজভী বলেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সরকারের দলীয় বাহিনীর মতো কাজ করছে। ভোটাররা তাদের ওপর আস্থা পাচ্ছে না। এ পরিস্থিতিতে সেনাবাহিনী মোতায়েন অত্যাবশ্যক। শুধু তাই নয়, ইভিএম ব্যবহারে জনগণের আগ্রহ না থাকলেও নির্বাচন কমিশন অনেক সেন্টারে ইভিএম ব্যবহারের ঘোষণা দিয়েছে।

এগুলো সবই সরকারের ইচ্ছারই প্রতিফলন। দুই সিটি করপোরেশনে অবিলম্বে লেবেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করা, ইভিএম বাতিল, সেনাবাহিনী মোতায়েন করা এবং বিএনপি নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার বন্ধ করে নির্বাচনী পরিবেশ তৈরির জোর দাবি জানান তিনি। নারায়ণগঞ্জ কারাগারে বন্দি দলের চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসের প্রতি অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, তাকে একটি ছোট অন্ধকার কক্ষে রাখা হয়েছে। বন্দি মানুষ হিসেবে যতটুকু অধিকার পাওয়া দরকার সেটিও দেয়া হচ্ছে না কারাগারে।

তার জামিন প্রক্রিয়া প্রলম্বিত করছে সরকার। আমরা শিমুল বিশ্বাসের প্রতি সরকারের এহেন আচরণের নিন্দা জানাচ্ছি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন-বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকার, আতাউর রহমান ঢালী, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, তাইফুল ইসলাম টিপু, সাইফুল ইসলাম পটু, কাজী রফিক, অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম, ছাত্রদলের সাবেক কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুল খালেক প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।