গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণে নিতেই ডিজিটাল আইন : মওদুদ

গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণে নিতেই ডিজিটাল আইন : মওদুদ

স্টাফ রিপোর্টার : নির্বাচনের আগে গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণে রাখতেই সরকার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রয়াত সদস্য আসম হান্নান শাহের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের উদ্যোগে এক আলোচনা সভার এই অভিযোগ করেন মওদুদ। বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ বলেন, এই আইনটি করা হয়েছে নির্বাচনের আগে দুরভিসন্ধিমূলকভাবে গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য। ৫৭ ধারায় যে বিধান ছিল সেটাকে এখন চারটা সেকশনের মধ্যে দিয়ে দিয়েছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ধারাগুলো তুলে ধরে সাবেক এই আইনমন্ত্রী বলেন, এ আইনের ৩২ ধারা আরও বিপজ্জনক।

 সরকারি কোনো কাগজ সাংবাদিকদের দিলে এ আইনে ১৪ বছরের সাজা এবং ২৫ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। এর অর্থটা কী? এর অর্থ হল-গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে সম্পূর্ণভাবে স্তব্ধ করে দেওয়া, তাদের টুঁটি চেপে ধরা, তাদের হাত-পা বেঁধে দেওয়া। সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার লেখা ‘এ ব্রোকেন ড্রিম’ বইটিকে ঐতিহাসিক দলিল হিসেবে বর্ণনা করেন মওদুদ। তিনি বলেন, এই বইটাতে স্পষ্ট করে তিনি (এসকে সিনহা) বলে দিয়েছেন-কী করে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের উপরে সরকার রাজনৈতিক প্রভাব খাটাত, তিনি বলে দিয়েছেন কী কারণে তারা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারেন নাই। বিএনপির এই নেতা বলেন, আমি এস কে সিনহার ষোড়শ সংশোধনীর রায়কে ডিফেন্ড করি এবং তার এই বইয়ের প্রশংসা করি। তার এই ভূমিকার জন্য তিনি বাংলাদেশের ইতিহাসে অমর হয়ে থাকবেন। সংগঠনের সহ-সভাপতি মজিবর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালনায় এতে আরো বক্তব্য দেন-বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা জয়নুল আবদিন ফারুক, নাজিমউদ্দিন আলম প্রমুখ।