খেলাধুলায় সম্পৃক্ত থাকলে বিপথে যাবে না ছেলেমেয়েরা

খেলাধুলায় সম্পৃক্ত থাকলে বিপথে যাবে না ছেলেমেয়েরা

লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা, শরীর চর্চার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, যতবেশি খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক চর্চা সম্পৃক্ত করতে পারবো তত বেশি তাদের চরিত্র দৃঢ় হবে, সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হবে, মাদক-জঙ্গি এ ধরনের বিপথে ছেলেমেয়েরা যাবে না।

রোববার (২১ অক্টোবর) গণভবনে একটি অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়াধীন উপজেলা পর্যায়ের ৬৬টি শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম, ৬টি জেলার যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাল্টি স্পোর্টস ইন্ডোর কমপ্লেক্স উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, শিক্ষার সঙ্গে সঙ্গে খেলাধুলা একান্তভাবে অপরিহার্য। খেলাধুলার সঙ্গে আমাদের শিশু-তরুণরা যত বেশি সম্পৃক্ত হবে-আমি মনে করি শারিরীকভাবে তারা সুস্থ থাকবে, মানসিকভাবে তারা দৃঢ়চেতা হবে, মনোবল বৃদ্ধি পাবে, দেশ ও জাতির জন্য তারা গৌরব বয়ে আনবে, পরিবারের জন্য গৌরব বয়ে আনবে।

‘সেদিকে লক্ষ্য রেখে আমরা লেখাপড়ার সঙ্গে সঙ্গে খেলাধুলায় গুরুত্ব দেই। ছেলেমেয়েদের খেলাধুলায় আরও বেশি সম্পৃক্ত করতে চাই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারা বাংলাদেশে আমাদের ছেলেমেয়েরা খেলাধুলা করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রেখে মিনি স্টেডিয়াম করে দিচ্ছি। আমরা চাই ছেলেমেয়েরা যেনো আরো বেশি খেলাধুলায় সম্পৃক্ত থাকে।

খেলাধুলার সঙ্গে পারিবারিক সম্পৃক্ততার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের পরিবারও খেলাধুলার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল। আমি স্পোর্টস পরিবারেরই একজন।

দেশীয় খেলাধুলার বিকাশে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে বলেন, স্থানীয় খেলাধুলাগুলো যেন হারিয়ে না যায়। আমরা সেগুলোকে উৎসাহিত করছি।

যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে দক্ষ জনগোষ্ঠী গড়ে তুলতে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দক্ষ প্রজন্ম হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

গণভবন প্রান্ত থেকে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার।

প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিভিন্ন উপজেলার উপকারভোগীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।