ক্ষমতার ক্ষুধায় বিএনপি উন্মাদ: কাদের

ক্ষমতার ক্ষুধায় বিএনপি উন্মাদ: কাদের

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি ২০০৬ সাল থেকে ‘ক্ষমতার ক্ষুধার জ্বালায় উম্মাদ হয়ে প্রলাপ বকছে’ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছন, অক্টোবরে নাকি মাঠ দখল করবে; স্বপ্ন দেখছে,  রঙ্গিন স্বপ্ন। ক্ষমতা ফিরে পেতে আবারও রঙ্গিন স্বপ্ন দেখছে, মাঠ দখল করবে। বাংলাদেশ অচল করবে, ঢাকা অচল করবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার ধানমন্ডির ৩২ নম্ব^রে দুস্থ ও অসহায়দের মাঝে আওয়ামী লীগের ত্রাণ উপকমিটির রিকশা ও ভ্যান বিতরণ অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এ সব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, যারা দেশ অচল করতে চায়, ঢাকা অচল করতে চায়, আমরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তাদের অচল করে দেব। তিনি বলেন, খবর আছে বিএনপির সাগরে ঢেউ নেই। মরা গাঙ্গে ঢেউ আসে না। বিএনপির আন্দোলন নেতিবাচক রাজনীতির জন্য মরা গাঙ্গে রূপ নিয়েছে, এই গাঙ্গে আর জোয়ার আসবে না।

 কাদের বলেন, আন্দোলন কখন হয়? যখন আন্দোলনের মত পরিস্থিতি বিরাজমান থাকে। কিন্তু এখন কারো মাঝে অসন্তোষ নেই। কোথাও জনমনে কোনো ক্ষোভ নেই, অশান্তি নেই। অশান্তি শুধু বিএনপিকে কেন্দ্র করে। তারা ক্ষমতা চায়। তারা ক্ষমতাকে কেন্দ্র করে লুটপাটের রাজত্ব করতে চায়। নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ নেতা কাদের বলেন, আমরা পাল্টাপাল্টি করব না। কাউন্টার কোনো মিটিং করব না। সব জায়গায় সর্তক পাহারায় থাকবেন। কেউ যাতে নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে না পারে। নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে পাড়ায় পাড়ায়, মহল্লায় মহল্লায়, ঘরে ঘরে, গ্রামে গ্রামে জনগণের কাছে আমরা যাব।ৃ সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে আমরা ক্যাম্পেইন করব এবং নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার জন্য অনুরোধ করব। আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ কেন্দ্রীয় উপ কমিটির চেয়ারম্যান এ এফ এম ফখরুল ইসলাম মুন্সীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল-উল আলম হানিফ, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ।

মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ
এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে রাজধানীর আরামবাগ মাঠে রক্তদান কর্মসূচি, আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের বলেন, যারা দেশ দখল করে, ঢাকা দখল করে অচল করে দেওয়ার হুমকি দিচ্ছে আমরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তাদের অচল করে দেবো। আপনারা প্রস্তুত থাকেন। তিনি বলেন, তারা আজ হুমকি-ধামকি দিচ্ছে দেশ অচল, ঢাকা অচল করে দেবে। আপনারা কী করবেন? আমরা কি ঘরে বসে ডুগডুগি বাজাবো? যুবলীগ নেতাকর্মীরা প্রস্তুত হয়ে যান। ষড়যন্ত্র চলছে, জনগণের সাড়া না পেয়ে তারা ষড়যন্ত্র করছে। দেশ অচল করার হুমকি দিচ্ছে। যারা দেশ অচল করতে চায়, ঢাকা অচল করতে চায় আমরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তাদের অচল করে দেবো। ঠিক আছে? আপনারা প্রস্তুত আছেন? এসময় হাত তুলে সাড়া দিতে বললে উপস্থিত যুবলীগের নেতাকর্মীরা ওবায়দুল কাদেরকে হাত তুলে সাড়া দেন। কাদের বলেন, আমরা পাড়া-মহল্লায় ঘরে ঘরে জনগণের কাছে গিয়ে সাম্প্রদায়িক অশুভ শক্তি সম্পর্কে সচেতন করবো। আগামী নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক শক্তিকে বিজয়ী করবো।

 এটাই শেখ হাসিনার জন্মদিনে আমাদের শপথ। অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনার জন্মদিনকে ‘জনগণের ক্ষমতায়ন দিবস’ হিসেবে পালনের প্রস্তাব করেন যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী। এই প্রস্তাব সমর্থন করেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক। তিনি আওয়ামী লীগের পরবর্তী কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় এই প্রস্তাব দেওয়ার আশ্বাস দেন। ওবায়দুল কাদের তার বক্তব্যে এ প্রসঙ্গে বলেন, আমি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আশ্বাস দিচ্ছি, আগামী বছর শেখ হাসিনার জন্মদিন ‘জনগণের ক্ষমতায়ন দিবস’ হিসেবে উদযাপন হবে। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য রাখেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য শহীদ সেরনিয়াবাত, মুজিবুর রহমান চৌধুরী প্রমুখ।