কালীগঞ্জে ইজিবাইক চালক খুন

কালীগঞ্জে ইজিবাইক চালক খুন

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলায় আবুল বাশার শেখ (৫৪) নামের এক ইজিবাইক চালককে খুন করা হয়েছে। সোমবার সকালে খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

রোববার রাত ৩টার দিকে উপজেলার মোক্তারপুর ইউনিয়নের বড়হরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বাশার ওই গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দিন শেখের ছেলে। পেশায় তিনি একজন ইজিবাইক চালক ছিলেন। এ ব্যাপারে নিহতের দুই ছেলে ও ছেলের বউ, মেয়ে এবং ভাতিজাকে থানায় জিজ্ঞেসাবাদ করেছে পুলিশ।

নিহতের ভাই বুরুজ মিয়া জানান, তার ভাইয়ের একাধিক বিয়ের ঘটনা ছিল। তিন বছর আগে তার স্ত্রী মারা যাওয়ার ৪০ দিন না যেতেই ২০-২৫ দিনের মাথায় দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এ নিয়ে প্রথম স্ত্রীর ছেলেদের সঙ্গে বিরোধ চলছিল। পরে সেই স্ত্রী ডিভোর্স দিয়ে চলে যাওয়ার পর পুনরায় তৃতীয় বিয়ে করেন। তৃতীয় স্ত্রীর সঙ্গে নানা বিষয় নিয়ে ঝামেলা চলছিল। তবে অভিযোগ সম্পত্তি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ছেলেরা বাবাকে খুন করে থাকতে পারে। নিহতের পাঁচ ছেলের মধ্যে তিনজন প্রবাসী ও দুইজন দেশে থাকে এবং এক মেয়ে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণিতে পড়ে।

স্থানীয় ও থানা সূত্রে জানা যায়, রোববার বিকেলে বাশার শেখ ইজিবাইক নিয়ে কাজের জন্য বের হন। ওই দিন তার তৃতীয় স্ত্রী বাড়িতে ছিলেন না। স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করে তিনদিন আগে বাবার বাড়ি চলে যান। তাই রাতের খাবার তার ঘরে সাজিয়ে রেখে বাড়ির লোকজন ঘুমিয়ে পড়েন। রাত আড়াইটার দিকে চিৎকার শুনে বাড়ির লোকজন গিয়ে দেখেন তিনি রক্তাক্ত জখম অবস্থায় পড়ে আছেন। পরে তাকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

কালীগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি মো. আবুবকর মিয়া বলেন, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। নিহতের গালে, পেটে ও পিঠে তিনটি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। নিহতের দুই ছেলে ও ছেলের বউ, মেয়ে এবং ভাতিজাকে থানায় জিজ্ঞেসাবাদ করা হয়েছে। বাশার শেখ খুন হয়েছে সত্যি, তবে যে কারণে খুনের অভিযোগ করা হচ্ছে সেটা নাও হতে পারে। সেখানে অন্য কোনো কারণও থাকতে পারে। পুলিশ ঘটনা তদন্ত করে দেখছে। তবে আপাতত অভিযোগ আমলে নিয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।