কর্মমূখী শিক্ষা ব্যবস্থা

কর্মমূখী শিক্ষা ব্যবস্থা

এশিয়ার পাঁচটি রাজধানীর মধ্যে বেকারত্বের হারের দিক থেকে ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা। সম্প্রতি প্রকাশিত এক গবেষণার প্রতিবেদন অনুসারে, ঢাকায় বেকার লোকের হার ৪ দশমিক ৮১ শতাংশ। তরুণদের শিক্ষা ও দক্ষতার অভাবে ঢাকায় বেকারত্বের হার বাড়ছে। ২০১৭ সালের গ্লোবাল লিস্ট অ্যান্ড মোস্ট স্ট্রেসফুল সিটিজ ব্যাংকিং শিরোনামের প্রতিবেদন অনুসারে, সবচেয়ে বেশি বেকারত্বের হার নেপালের রাজধানী কাঠমুন্ডুতে এবং সবচেয়ে কম কম্বোডিয়ার রাজধানী নমপেনএ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বেসরকারি খাতে শ্রমিক ও কারিগরি জ্ঞান সম্পন্ন জনবলের দরকার হয়।

কিন্তু বাংলাদেশে উচ্চ শিক্ষিতদের ৯০ শতাংশই সাধারণ শিক্ষায় শিক্ষিত, যার সঙ্গে শিল্প-কারখানা ও ব্যবসা বাণিজ্য পরিচালনার সম্পর্ক থাকে না। দেশে উচ্চ শিক্ষিতরা বেশি বেকার এমন তথ্য উৎসাহব্যঞ্জক নয়। কিন্তু বাস্তবে সেটিই আছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) জরিপের তথ্য অনুযায়ী, দেশে ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়সী বেকারত্বের হার ৮ দশমিক ৭ শতাংশ। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় উত্তীর্ণ ৯০ দশমিক ১ শতাংশ। প্রতি বছর বাংলাদেশে দক্ষ জনশক্তির ক্ষেত্র প্রসারিত হচ্ছে। তবে বাংলাদেশের যুবকরা কেন এসব ক্ষেত্রে কাজ পাচ্ছে না? আমাদের দেশে শিক্ষা ব্যবস্থার মধ্যেই এর জবাব নিহিত। এখানে যেসব বিষয়ে অনার্স ও মাস্টার্স পড়ানো হচ্ছে, তার মধ্যে অনেক বিষয়ই চাকরির সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। তাই কাজের কথা মাথায় রেখেই বিষয় নির্বাচন করতে হবে। কাজের চাহিদা বিবেচনায় রেখে শিক্ষা ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনা জরুরি মনে করি।