কণ্ঠে ‘হৃদয়ের নীল’ ছড়ালেন সামিনা চৌধুরী-পিলু খান

কণ্ঠে ‘হৃদয়ের নীল’ ছড়ালেন সামিনা চৌধুরী-পিলু খান

মাস-দেড়েক আগে খ্যাতনামা গীতিকবি শহীদ মাহমুদ জঙ্গীর কথায় বাজারে আসে সুরকার-সংগীতশিল্পী এবং রেনেসাঁ ব্যান্ডের অন্যতম সদস্য পিলু খানের প্রথম একক অ্যালবাম ‘তোমরা ভালো আছো তো’। 


আট গানের এই অ্যালবামের চারটি গান একককণ্ঠে গেয়েছেন পিলু খান। বাকি চারটির গান দ্বৈতভাবে গেয়েছেন ফাহমিদা নবী-সামিনা চৌধুরী বোনদ্বয়ের সঙ্গে। চারটির মধ্যে তিনটি সামিনা চৌধুরীর সঙ্গে এবং একটি গান গেয়েছেন ফাহমিদা নবীর সঙ্গে। এই অ্যালবামের সবগুলো গানের সঙ্গীতায়োজন করেন সুমন কল্যাণ।

সামিনা চৌধুরী-পিলু খানের দ্বৈতভাবে গাওয়া গান তিনটি হচ্ছে- ‘উল্টেপাল্টে’, ‘হৃদয়ের নীল’ এবং ‘এসো হে বন্ধু’। এর মধ্যে শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) বাংলাঢোল’র ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ পেয়েছে তাদের ‘হৃদয়ের নীল’র গান-ভিডিও।

হৃদয়ের নীল যদি সাগরের নীল হতো/আমি ছুটে ছুটে যেতাম তোমার কাছে প্রিয়তম- এমন কথার গানটি প্রসঙ্গে শহীদ মাহমুদ জঙ্গী  বলেন, ‘আমি সামিনার গানের ভক্ত। খালি গলায় গান যে কত শ্রুতিমধুর হয়, তা সামিনার গান না শুনলে বোঝা যায় না। পিলু খান একজন জেনুইন মিউজিশিয়ান। আশি-নব্বই দশকে তাকে ক্লাসিক্যাল ড্রামার বলা হতো। গুনি সুরকার।  এই দুই শিল্পীর ‘তোমরা ভালো আছো তো’ অ্যালবামের তিনটি গানই চমৎকার। এর মধ্যে ‘হৃদয়ের নীল’ গানটি প্রকাশ পেয়েছে। মান বিচার করার জন্য গানটি শ্রোতারা শুনতে পারেন।

অ্যালবামটিতে ফাহমিদা নবীর সঙ্গে গেয়েছেন ‘এলাম প্রথমবার’ শিরোনামের গানটি। পিলু খানের একক কণ্ঠের গান চারটি হলো- ‘আমার গল্প আঙিনায়’, ‘হাজারো দুঃখ নিয়ে’, ‘সবকিছু শেষ হলে’ এবং ‘তুমি জানো কি’। গাওয়ার পাশাপাশি সবগুলো গানের সুরারোপ করেছেন পিলু খান নিজেই।