ঐক্যকে একেবারে তৃণমূলে নিয়ে যেতে হবে : ড. কামাল

ঐক্যকে একেবারে তৃণমূলে নিয়ে যেতে হবে : ড. কামাল

স্টাফ রিপোর্টার : জনগণকে সত্যিকার অর্থে ক্ষমতার মালিকের ভূমিকায় রাখতে ঐক্যের ডাককে একেবারে তৃণমূল পর্যায়ে নিয়ে যেতে বললেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন। তিনি বলেন, আমরা অতীতে ঐক্যের ডাক দিয়ে ভালো সাড়া পেয়েছি, সফল হয়েছি। এবারো আমরা ঐক্যের ডাক দিয়ে নেমেছি। মানুষের সাড়াও পড়ছে। আমরা বিশ্বাস করি, ঐক্যের ডাকের গুরুত্বটা জনগণ উপলব্ধি করছেন।গতকাল শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন ড. কামাল। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এই আহ্বায়ক বলেন, জনগণকে ক্ষমতার মালিকের ভূমিকায় রাখতে হবে, আমাদেরকে একত্রিত হতে হবে।

 সেজন্য আমাদের এই ঐক্যের ডাক, ঐক্যের রাজনীতির ডাক। এই ঐক্যের ডাক পাড়া-মহল্লা-গ্রামে নিয়ে যেতে হবে। এই ঐক্যকে আরো সুসংহত করে আমরা আগামীতে দেশকে জনগণের নিয়ন্ত্রণে আনব। কামাল হোসেন দাবি করেন, ঐক্য সৃষ্টি হলে   স্বৈরশাসনের সম্ভাবনা থাকে না, স্বৈরশাসনও টিকে থাকতে পারবে না। তিনি বলেন, আমরা যখনই ঐক্য গড়ার চেষ্টা করি, তখনই কালো টাকা দিয়ে বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টা করা হয় এবং সাম্প্রদায়িক বিভাজনকে সামনে আনা হয়। কিন্তু জনগণ এগুলোকে প্রশ্রয় দেয় না বলে সরকার সফল হয় না।

 ড. কামাল বলেন, জনগণের শাসন হবে প্রত্যেক স্তরে- কেন্দ্রতে, জেলায় জেলায়, স্থানীয় পর্যায়ে সবখানে। এটা হলে কার্যকর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হবে, জনগণের কাক্সিক্ষত লক্ষ্যগুলো অর্জিত হবে। সভায় ক্যাসিনোকান্ডে গ্রেপ্তার যুবলীগ নেতা ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের প্রসঙ্গ টেনে জেএসডির সভাপতি আসম আবদুর রব বলেন, সম্রাট সাহেবের ইনটেরোগেশনটা (জিজ্ঞাসাবাদ) জাতি শুনতে চায়। কাকে কাকে টাকা দিয়েছেন? কেন ২৫ দিন পর্যন্ত তাকে গ্রেপ্তার করতে দেরি হলো? বাজারে গুজব, অনেক মন্ত্রীর নাম আছে। দেশের মানুষকে সন্দেহের মধ্যে রাখবেন না, বিষয়টা পরিষ্কার করুন। সংগঠনের জাতীয় সমন্বয়ক এ আর শিকদারের সভাপতিত্বে এতে গণফোরামের রেজা কিবরিয়া, মহসিন রশিদ, জেএসডির তানিয়া রব, সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের আবু লায়েস মুন্না ও সিরাজুল ইসলাম বক্তব্য দেন।