এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে লন্ডন গেলেন নওয়াজ শরিফ

এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে লন্ডন গেলেন নওয়াজ শরিফ

চিকিৎসার জন্য লন্ডনে গেলেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। একটি এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে লন্ডনের উদ্দেশে লাহোর ছাড়েন তিনি। নওয়াজের ব্যক্তিগত চিকিৎসক জানিয়েছেন, তাকে বহনকারী এয়ার অ্যাম্বুলেন্স দোহা হয়ে লন্ডনে যাবে।
চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যেতে হলে বন্ডে সই করতে হবে, পাকিস্তান সরকার এমন নির্দেশ দেয়ার পর থেকেই নওয়াজের লন্ডন যাওয়া আটকে ছিল। তবে শেষ পর্যন্ত শনিবার লাহোর হাইকোর্ট জানিয়েছে, বিনা শর্তেই চিকিৎসার জন্য লন্ডন যেতে পারবেন সাবেক এই পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী। আদালত এদিন জানান, চিকিৎসার জন্য নওয়াজ শরিফ চার সপ্তাহ বিদেশে গিয়ে থাকতে পারবেন। এজন্য তাকে কোনও বন্ড বা ক্ষতিপূরণপত্রে সই করতে হবে না।
তিনবারের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ বর্তমানে দুর্নীতির মামলায় সাজা খাটছেন। তবে বেশ কয়েক সপ্তাহ আগে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। এমন প্রেক্ষিতে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও চিকিৎসকরা নওয়াজকে সারিয়ে তুলতে পারেননি।
পরে চিকিৎসকরা নওয়াজকে বিদেশে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু নো ফ্লাই লিস্টে নাম থাকায় বিদেশ যেতে পারেননি নওয়াজ। পাশাপাশি কোনও বন্ডে সই করে বিদেশ যেতে রাজি হননি পাকিস্তান মুসলিম লীগ (নওয়াজ)-র প্রধান।
এদিকে নওয়াজকে বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দিয়ে হাইকোর্ট জানিয়েছে, নওয়াজ ও তার ভাই শাহবাজকে এই সফরের বিষয়ে লিখিত দিতে হবে। আর সেটি আদালতের কাছেই থাকবে। কিন্তু এটি অমান্য করলে আদালত অবমাননার দায়ে পড়তে হবে দুজনকে।
অন্যদিকে আদালতের নির্দেশনা প্রসঙ্গে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, রায় নিয়ে কিছু বলার নেই। রাজনীতির থেকে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ নওয়াজ শরিফের স্বাস্থ্য।
উল্লেখ্য, রক্তের এক বিরল অসুখে ভুগছেন নওয়াজ শরিফ। প্লেটলেট কাউন্ট অস্বাভাবিক হারে নেমে যাচ্ছে তার। স্টেরয়েড দিয়ে অবস্থা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন লাহোরের সার্ভিসেস হাসপাতালের ডাক্তাররা। স্টেরয়েড বন্ধ করলেই, প্লেটলেট কাউন্ট কমছে। দুই সপ্তাহ ধরে তাকে হাসপাতালে রেখে চিকিৎ‌‌সা করেও সুস্থ করে তুলতে ব্যর্থ হন ডাক্তাররা। পরে তারা নওয়াজকে বিদেশে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।