‘এবারের ভারত সফরেও তিস্তা চুক্তি নিয়ে কোনো এজেন্ডা নেই’

‘এবারের ভারত সফরেও তিস্তা চুক্তি নিয়ে কোনো এজেন্ডা নেই’

প্রধানমন্ত্রীর এবারের ভারত সফরেও তিস্তা চুক্তির বিষয়ে কোনো এজেন্ডা নেই উল্লেখ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, বিগত আট বছর ধরে আওয়ামী লীগ ঘোষণা দিয়ে আসছে যে, তারা ভারতের সঙ্গে তিস্তা চুক্তি করতে যাচ্ছে। এতো বন্ধুত্ব অথচ শেখ হাসিনা ভারত থেকে এক বালতি পানিও আনতে পারেননি।

বৃহস্পতিবার (২৪ মে) বেলা সাড়ে ১১টায় নয়াপল্টনে দলের প্রধান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

রিজভী বলেন, ‘বুধবার (২৩ মে) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বহুল প্রত্যাশিত তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে অগ্রগতির কোনো তথ্য জানাতে পারেননি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। কিন্তু বছর যায় বছর আসে আর বাংলাদেশের অবৈধ সরকার শুধু একতরফাভাবে ভারতকে সবকিছু দিয়েই যাচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষের ন্যায্য পানির হিস্যা বুঝে পাচ্ছে না। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় টিকে থাকতে সার্বভৌমত্বকে ক্ষয়িষ্ণু করে ভারতকে সবকিছু দিয়ে যাচ্ছেন, বিনিময়ে কিছুই পাননি।’
 
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ফয়সাল আহমেদ সজলকে দুইদিন ধরে খুঁজে পাওয়া পাচ্ছে না অভিযোগ করে রিজভী বলেন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তাকে তুলে নিয়ে গেছে বলে তার সহকর্মীরা আশঙ্কা করছেন। পুরনো কায়দায় বিরোধী দল নিধনের হাতিয়ার হিসেবে তাকে তুলে নেওয়া হয়েছে। প্রায় ৪৮ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও খোঁজ পাওয়া না যাওয়ায় তার পরিবার, সহকর্মীসহ আমরা চরম উৎকণ্ঠায় আছি। এটি যেন সেই ইলিয়াস আলী, চৌধুরী আলম, সাইফুল ইসলাম হিরুসহ দেশব্যাপী অসংখ্য গুমেরই নতুন চিত্র।

বিএনপির এই নেতা বলেন, দেশ-বিদেশের গণমাধ্যমগুলো, সোশ্যাল মিডিয়াসহ মানবাধিকার সংগঠনগুলো বেআইনিভাবে মানুষ হত্যার বিরুদ্ধে তুমুল সমালোচনা করলেও থামছে না বিচারবর্হিভূত হত্যা।

প্রকৃত মাদক ব্যবসায়ীদের ধরা হচ্ছে না অভিযোগ করে তিনি বলেন, গতকালও সরকারের শরিক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশষ দূত বলেছেন, মাদক সম্রাটরা সংসদেই আছে তাদের ধরে বিচার করুন। গণমাধ্যমে মাদকের গডফাদারদের তালিকা প্রকাশ হচ্ছে। কিন্তু তাদের ধরা হচ্ছে না।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশারফ হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।