এবার রক্তাক্ত শ্রীলংকা

এবার রক্তাক্ত শ্রীলংকা

শোকে স্তব্ধ, আতঙ্ক ও বিস্ময়ে বিমূঢ় মৃত্যুপুরী শ্রীলংকায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯০ জনে। আহত আরও ৫ শতাধিক এ মর্মান্তিক ঘটনায় আমরা গভীরভাবে শোকাহত। আমরা নিহত ব্যক্তিদের আত্মার শান্তি কামনা করছি, আহতদের সুচিকিৎসা ও দ্রুত আরোগ্য কামনা করছি। শ্রীলংকার ছোট্ট নদী কেলানিতে এখন বইছে রক্তস্রোত। সে রক্তের স্রোত গিয়ে মিশেছে পশ্চিম থেকে পূর্বের নদী মহাভেলিতে। ইতিহাসের বর্বরতম সিরিজ বোমা হামলায় প্রাচীন সিংহল এখন কেবলই মৃত্যুপুরী। ইস্টার সানডের প্রার্থনা সভা পরিণত হয়েছে বিশ্ব মানবতার করুণ আর্তনাদে। গত রোববার দেশটির রাজধানী কলম্বোসহ বিভিন্ন স্থানে গির্জা ও হোটেলে ধারাবাহিক বোমা বিস্ফোরণে এসব হতাহতের ঘটনা ঘটে। সোমবার সকালে শ্রীলংকান পুলিশের মুখপাত্র রুয়ান গুনাসেকেরা হতাহতের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। শ্রীলংকার কলম্বোয় সিরিজ বোমা হামলায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সিনিয়র পার্লামেন্টারিয়ান শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরী (৮) নিহত হয়েছে। আহত হয়েছেন তার জামাতা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স। ঘটনার সময় শিশু পুত্রকে নিয়ে তিনি হোটেলের নিচ তলায় সকালের নাশতা করছিলেন। নিহতদের মধ্যে অন্তত ২৭ জন বিদেশি নাগরিক রয়েছেন। এদিকে গির্জা ও হোটেলে সিরিজ বোমা হামলার পর রোববার রাতে শ্রীলংকার পুত্তালুম জেলার একটি মসজিদে বোমা হামলার ঘটনা পাওয়া গেছে। সন্ত্রাসী হামলা যে উদ্দেশ্যেই চালানো হোক না কেন, তা নিন্দনীয়। আমাদের মনে রাখতে হবে, বিদ্বেষ শুধু বিদ্বেষেরই জন্ম দেয় এবং তাতে রক্তপাত আরও বাড়ে। সারা বিশ্বেই জাতিগত ও ধর্মীয় বিদ্বেষ বাড়ছে। এর কারণ যথাযথভাবে চিহ্নিত করা দরকার। বিশ্ব নেতাদের হিংসা ও বিদ্বেষ, ঘৃণা ও জিঘাংসার মূল কারণগুলো দূর করার উদ্যোগ নেওয়ার কথা ভাবতে হবে। সন্ত্রাসী হামলায় বিশ্বের প্রায় প্রতিটি রাষ্ট্রই ক্ষত-বিক্ষত হচ্ছে যে কারণে বিশ্বের প্রতিটি দেশেরই কর্তব্য হওয়া দরকার নিজ নিজ দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা। একই সঙ্গে সন্ত্রাসকে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলায় অঙ্গীকারাবদ্ধ হতে হবে বিশ্বকে।