এতিমখানার বাথরুমে একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণ

এতিমখানার বাথরুমে একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণ

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার পরিজাত এতিমখানা ও বৃদ্ধাশ্রমের একাধিক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে একই প্রতিষ্ঠানের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় এতিমখানার শিক্ষক রবিউল ইসলামকে (২৯) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে বালিয়াকান্দি থানায় মামলা করেন ওই এতিমখানার ভাইস চেয়ারম্যান মো. ফারুক আহম্মেদ। ধর্ষণ মামলার প্রেক্ষিতে শিক্ষক রবিউল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতার শিক্ষক রবিউল ইসলাম বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া ইউনিয়নের খালিয়া মধুপুর গ্রামের উমর আলীর ছেলে। গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণের বিষয়টি স্বীকার করেছে শিক্ষক রবিউল ইসলাম।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বালিয়াকান্দি থানা পুলিশের এসআই নূর মোহাম্মদ বলেন, উপজেলার নারুয়া ইউনিয়নের মধুপুর এলাকার পরিজাত এতিমখানার শিক্ষক রবিউল ইসলাম ছাত্রীদের ক্লাস নেয়ার সুযোগে চতুর্থ শ্রেণির এক ছাত্রীর (১২) সঙ্গে সু-সম্পর্ক গড়ে তোলে। ওই সম্পর্কের সূত্র ধরে গত সেপ্টেম্বর মাসে ছাত্রীকে এতিমখানার বাথরুমে নিয়ে ধর্ষণ করে রবিউল। ধারাবাহিকভাবে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে আসছিল সে। এরই মধ্যে আরও দুই ছাত্রীকে টাকার প্রলোভন দেখিয়ে এতিমখানার বাথরুমে নিয়ে ধর্ষণ করে শিক্ষক রবিউল।

এসআই নূর মোহাম্মদ আরও বলেন, শিক্ষক রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে একইভাবে আরও কয়েকজন ছাত্রীকে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের অভিযোগ রয়েছে। বিষয়টি জেনে এতিমখানার ভাইস চেয়ারম্যান ফারুক আহম্মেদ বাদী হয়ে থানায় ধর্ষণ মামলা করেন। মামলার প্রেক্ষিতে শিক্ষক রবিউল ইসলামকে গ্রেফতার করে রাজবাড়ী আদালতে পাঠানো হয়।

বালিয়াকান্দি থানা পুলিশের ওসি একেএম আজমল হুদা বলেন, মামলায় একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ আনলেও এক ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় শিক্ষক রবিউলের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তবে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে রবিউল।